বিকাশ পিন লক হলে করণীয়

বিকাশ পিন লক হলে করণীয়

আপনাদের সকলকে স্বাগতম জানাই আমাদের আজকের এই আর্টিকেলে। আমরা সচারাচর শুধুমাত্র আপনাদের জন্য আপনাদের সুবিধার্থে প্রতিনিয়ত নিয়ে আসে নতুন নতুন সব আর্টিকেল। আপনারা অনেকেই অনেক রকমের প্রশ্ন করে থাকেন আমরা সেই প্রশ্নের উত্তর গুলো সঠিকভাবে দেওয়ার জন্যই আপনাদের কাছে এই আর্টিকেলের মাধ্যমে সবকিছু উপস্থাপন করি। ঠিক তেমনি আপনারা অনেকেই জানতে চেয়েছেন বিকাশ পিন লক হলে কি করতে হবে সে সম্পর্কে।

বিকাশ হল আমাদের লেনদেনের একটি সুবিধা জনক মাধ্যম। আমাদের বেশিরভাগ মানুষেরই রয়েছে বিকাশ একাউন্ট। বিকাশ একাউন্টের মাধ্যমে আমরা এক জায়গা থেকে অন্য জায়গাতে খুব সহজে এবং খুবই কম সময়ের মধ্যে লেনদেন করতে পারি। তাই বিকাশের চাহিদা দিন দিন বেড়েই চলেছে।

তবে এই বিকাশ একাউন্টের পিন যদি লক হয়ে যায় তাহলে কিন্তু খুবই ভোগান্তিতে পড়তে হয়। আর এটা একটি চিন্তার বিষয়। তবে চিন্তা ভাবনা না করে আপনারা যদি আমাদের দেওয়া আর্টিকেলটি মনোযোগ সহকারে পড়েন তাহলে খুব সহজেই জেনে নিতে পারবেন বিকাশ পিন লক হলে করণীয় সম্পর্কে। তো চলুন জেনে নেওয়া যাক।

বিকাশ পিন লক হওয়ার কারণ

আমাদের মধ্যে অনেকেরই বিকাশ পিন হঠাৎ করে লক হয়ে যায়, যার কারণে আমাদেরকে অনেক চিন্তায় পড়তে হয়। তবে বিকাশ পিন কেন লক হয় তার বিশেষ কিছু কারণ রয়েছে। আমরা এখন সেই কারণগুলো সম্পর্কে আলোচনা করব।

বিকাশের পিন লক হওয়ার সবথেকে বেশি এবং প্রধান কারণ হলো বিকাশের পিন নাম্বার ভুল প্রদান করা। ভুল পিন নাম্বার যদি বারবার টাইপ করে বিকাশ একাউন্টে চেষ্টা করা হয় তাহলে এমনি এমনি সে বিকাশ পিনটি লক হয়ে যেতে পারে। আপনি যদি বিকাশ একাউন্টে ঢুকতে চান এবং তার জন্য ভুল পিন নাম্বার দিয়ে পরপর তিনবার টাইপ করেন তাহলে আপনার বিকাশ একাউন্টের পিন অটোমেটিক ব্লক হয়ে যাবে। এখন আপনার পিন নাম্বারটি লক হয়ে যাবে। তাই যখন আপনি বিকাশের পিন নাম্বারটি টাইপ করতে যাবেন তখন খুব মনোযোগ সহকারে টাইপ করবেন এবং খেয়াল রাখবেন যাতে ভুল পিন নাম্বার দিয়ে চেষ্টা না করা হয়।

বিকাশ পিন লক হলে করনীয়

আপনার বিকাশ পিন  যদি হঠাৎ করে কোন কারণবশত লক হয়ে যায় তাহলে আপনার তখন কি করা উচিত সে সম্পর্কে আমরা এখন আলোচনা করব। আজকে আমরা বিকাশ পিন লক হলে করণীয় সম্পর্কে যাবতীয় সকল তথ্যগুলো জানবো যার ফলে আমরা এখন নিজেদের বিকাশ পিন হঠাৎ করে লক হয়ে যায় তাহলে খুব সহজেই নিজেরাই সেই পিন ঠিক করে নিতে পারব। আর এর জন্য আমাদের বিকাশ পিন পরিবর্তন করে নেওয়াটা খুবই জরুরী বিকাশ পিন পরিবর্তন করে নেওয়ার মাধ্যমে আমরা নতুন একটি পিন নাম্বার সেট করে নিতে পারব এবং নতুন করে আবার আমরা বিকাশ একাউন্টে প্রবেশ করতে পারব।

বিকাশ পিন পরিবর্তন করার নিয়ম

আমরা চাইলে নিজেই নিজের বিকাশ পিন  পরিবর্তন করে নিতে পারি ঘরে বসেই। তবে এর জন্য কিছু নিয়ম রয়েছে সে নিয়মগুলো সম্পর্কে অবশ্যই আমাদেরকে আগে জেনে রাখতে হবে। আমরা যদি এই নিয়মগুলো সম্পর্কে জেনে রাখি তাহলে আমরা ঘরে বসেই আমাদের বিকাশ পিন পরিবর্তন করে নিতে পারব তো চলুন নিয়মগুলো জেনে নেওয়া যাক।

যে কোন মোবাইল ফোন দিয়ে বিকাশ পিন রিসেট করার পদ্ধতি

  • লাইভ চ্যাটের মাধ্যমে বিকাশ পিন রিসেট করার পদ্ধতি
  • কাস্টমার কেয়ারে ফোন করার মাধ্যমে বিকাশ পিন রিসেট করার পদ্ধতি

আমাদের দেওয়া এই তিনটি পদ্ধতি সম্পর্কে আপনারা যদি বিস্তারিতভাবে জেনে রাখেন তাহলে খুব সহজেই আপনারা চাইলে ঘরে বসেই আপনার বিকাশ পিন রিসেট করার পদ্ধতি সম্পর্কে জেনে যাবেন। এতে করে আপনাকে আর কোন চিন্তায় করতে হবে না এবং কোন ভোগান্তিতে পড়তে হবে না। নিজের সমস্যার সমাধান আপনারা তখন নিজেই করে নিতে পারবেন।