ইসলামী ব্যাংক বাংলাদেশ লিমিটেড লোন পদ্ধতি, সুদের হার

বাংলাদেশের যতগুলো ব্যাংক রয়েছে তাদের মধ্যে সবচেয়ে বেশি জনপ্রিয় একটি ব্যাংক হলো ইসলামী ব্যাংক বাংলাদেশ লিমিটেড। জনপ্রিয় একটি প্রতিষ্ঠিত হওয়ার 1983 সালের 23 শে মার্চ। আপনারা যারা বেসরকারি ব্যাংকের মাধ্যমে টাকা লেনদেন করতে চান তাদের জন্য এটি বাণিজ্যিক একটি ব্যাংক।

ইসলামী ব্যাংক বাংলাদেশ লিমিটেডের বিষয়টিকে বিনিয়োগের ক্ষেত্র হিসেবে রূপান্তরিত করেছে। অর্থাৎ তারা সরাসরি তাদের গ্রাহকদের লোন প্রদান করেন তাদের মতে আপনি যদি আপনার আর্থিক অবস্থার উন্নতি করতে চান তাহলে অবশ্যই ইসলামী ব্যাংক থেকে নির্দিষ্ট মেয়াদে অন্যতম শর্ত মেনে কাগজপত্র জমা দেওয়ার মাধ্যমে বিনিয়োগ করতে পারেন।

আমাদের দেশে যতগুলো বাণিজ্যিক ব্যাংক রয়েছে তাদের মধ্যে থেকে ইসলামী ব্যাংক একটু আলাদা কেননা ইসলামী ব্যাংকের লোন পদ্ধতি উন্নয়ন ব্যাংকের তুলনায় সহজ এবং এর সুদের হার তুলনামূলকভাবে অনেকটাই কম। যার কারণে এই ব্যাংক স্বল্প সময়ের মধ্যে ব্যাপক জনপ্রিয়তা লাভ করেছে।

কর্মসংস্থান ব্যাংক লোন নেওয়ার উপায়

আপনাদের মধ্যে হয়তো অনেকেই আছে যারা কিনা সহজ পদ্ধতিতে ইসলামী ব্যাংক বাংলাদেশ লিমিটেড হতে ব্যাংকের ঋণ নিতে আগ্রহী কিন্তু কীভাবে তারা এ ঋণের জন্য আবেদন করবেন এবং লোন নেওয়ার পদ্ধতি সম্পর্কে জানবেন তার সম্পর্কে অবগত নন। তাই আজকের আলোচনা জুড়ে আমরা আপনাদের সাথে আলোচনা করতে চলেছি ইসলামী ব্যাংক বাংলাদেশ লিমিটেডের লোন পদ্ধতি সুদের হার লোনের আবেদন জন্য যে সকল কাগজপত্র প্রয়োজন ইত্যাদি সকল তথ্য।

ইসলামী ব্যাংক বাংলাদেশ লিমিটেড IBBL লোন

ইসলামী ব্যাংক বাংলাদেশ লিমিটেড তাদের গ্রাহকদের জন্য বেশ কয়েকটি প্রদান করে থাকেন। আপনাদের জানানোর উদ্দেশ্যে আমরা প্রতিটি লোন নেওয়ার পদ্ধতি এবং কি কি ধরনের লোন নেওয়া যায় তার সুদের হার কত তার সম্পর্কে বিস্তারিত তথ্য উপস্থাপন করলাম।

পারিবারিক বিনিয়োগ প্রকল্প

আসবাবপত্র স্বর্ণালঙ্কার চিকিৎসা এবং প্রকৌশল শিক্ষার্থীদের জন্য যন্ত্রপাতি ইত্যাদি করার জন্য বাংলাদেশ ইসলামী ব্যাংক সর্বোচ্চ তিন বছর মেয়াদী হাউজহোল্ড বিনিয়োগ প্রদান করে থাকেন। সুতরাং আপনারা যারা এই পরে পারিবারিক বিনিয়োগ প্রকল্প লোন গ্রহণ করতে চান তারা নিচের অংশ থেকে বিস্তারিত তথ্য গুলো জেনে নিন।

ব্যাংক লোন নেওয়ার উপায়

  • এই লোনের মেয়াদ 3 বছর।
  • সুদের হার 16 শতাংশ বা তার চেয়ে কম।
  • মেট্রোপলিটন এলাকায় সর্বোচ্চ 30 লক্ষ এবং জেলা পৌরসভা এলাকায় সর্বোচ্চ 23 লক্ষ্য এবং অন্যান্য এলাকায় সর্বোচ্চ 10 লক্ষ টাকা লোন প্রদান করা হয়।
  • মোট খরচের সর্বোচ্চ 30% ব্যাংক কর্তৃপক্ষ বিনিয়োগ হিসেবে আপনাকে প্রদান করবে।

ট্রান্সপোর্ট ইনভেস্টমেন্ট স্কিম

বাংলাদেশে বিদ্যমান পরিবহন সমস্যা ও দেশে দ্রুত অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধি ব্যবসা-বাণিজ্য শিল্পের প্রসারের লক্ষ্যে বাংলাদেশ ইসলামী ব্যাংক লিমিটেড পরিবহন ক্ষেত্রে বেশ কিছু লোনের ব্যবস্থা করেছে। সুতরাং আপনারা যারা ইসলামী ব্যাংক থেকে লোন নিতে চান তারা নিচের নির্দেশনা অনুসরন করুন।

অনলাইনে লোন নেওয়ার উপায়

  • ব্যক্তি ব্যবসায়ী কিংবা ব্যবসায় যার পরিবহন ক্ষেত্রে বাস্তব অভিজ্ঞতা রয়েছে বাণিজ্যিক ব্যবহার প্রতিষ্ঠিত হাসপাতাল ও ক্লিনিক এর জন্য লোন প্রদান করা হয়।
  • বাস-ট্রাক মিনিবাস ডাবল ডেকার প্রাইভেটকার মাইক্রোবাস অটোরিকশা-পিকআপভ্যান ইত্যাদি কেনার জন্য আপনাকে ব্যাংক থেকে বিনিয়োগ করবে।
  • বিনিয়োগের সময়কাল সর্বোচ্চ তিন বছর।
  • সুদের হার 16% ব্যাংক কর্তৃপক্ষ থেকে নির্ধারিত।
  • গাড়ির ওপর নির্ভর করে মোট খরচ 60 থেকে 70 শতাংশ বিনিয়োগ ব্যাংক কর্তৃপক্ষ করবে।
  • আপনার সিকিউরিটি হিসেবে যানবাহন স্থাবর সম্পত্তি ইত্যাদির হিসেবে জমা দিতে হবে।

ইসলামী ব্যাংক ব্যক্তিগত হোম লোন

একজন ব্যক্তির স্বপ্ন রয়েছে যে সে তার একটি শখের বাড়ি তৈরি করবে কিন্তু এই অবস্থায় তার কাছে পর্যাপ্ত টাকা নেই। এতে করে আপনার স্বপ্ন পূরণ হচ্ছে না কিন্তু চিন্তার কোন কারণ নেই কেননা ইসলামী ব্যাংক আপনাদের লোন দেওয়ার জন্য সর্বদা পাশে রয়েছে। আপনাদের শখের বাড়িটি তৈরি করতে সাহায্য ফ্ল্যাট কিংবা ভবন তৈরি বাড়ি সম্প্রসারণ বা সংস্থার ইত্যাদি কেনার জন্য ইসলামী ব্যাংক বর্তমানে সর্বোচ্চ এক কোটি টাকা পর্যন্ত ব্যক্তিগত হোম লোন প্রদান করছে। তবে ব্যাংক কর্তৃপক্ষ এ লোন দেওয়ার জন্য বেশ কিছু শর্ত জারি করেছে যা নিচের অংশ তুলে ধরা হলো।

  • নতুন বাড়ি নির্মাণের জন্য সম্পূর্ণ খরচের 60% সর্বোচ্চ এক কোটি টাকা ব্যাংক থেকে লোন নিতে পারবেন।
  • বাড়ির মালিক চাকরীজীবি ব্যবসায়ী পেশাজীবী ও অন্যান্য বৈধ আয় করা ব্যক্তিরা ইসলামী ব্যাংক থেকে লোন নিতে পারবেন।
  • লোন পরিষদের সর্বোচ্চ 15 বছর যা পরবর্তীতে পরিবর্তনের সুযোগ রয়েছে।
  • নিরাপত্তা হিসেবে ব্যাংক কর্তৃপক্ষ আপনার থেকে জমি ফ্ল্যাটের নিবন্ধক ব্যক্তিগত গ্যারান্টি অতিরিক্ত নিরাপত্তা হিসেবে এমএসসি ইত্যাদি গ্রহণ করতে পারে।
  • সুদের হার 15 শতাংশ যা ব্যাংক ইন্টারেস্ট হিসেবে নির্ধারণ করা হয়েছে।

কার ইনভেস্টমেন্ট স্কিম – ইসলামী ব্যাংক কার লোন

বিভিন্ন পেশাদার ব্যক্তির ব্যক্তিগত কিংবা ব্যবসায় প্রতিষ্ঠান ব্যবসায়িক নির্বাহীদের গাড়ি ক্রয় করার ক্ষেত্রে বাংলাদেশ ইসলামী ব্যাংক লিমিটেড ইনভেস্টমেন্ট স্কিম চালু করেছে। অর্থাৎ আপনি গাড়ি কেনার জন্য ইসলামী ব্যাংক লিমিটেড থেকে টাকা লোন নিতে পারবেন। তবে লোন নেওয়ার ক্ষেত্রে ব্যাংক কর্তৃপক্ষ আপনার থেকে বেশ কিছু শর্ত ও যোগ্যতা যাচাই করবে।

  • রিকন্ডিশন কার, অটো ইত্যাদি কেনার জন্য আপনাকে ইসলামী ব্যাংক লোন প্রদান করবে।
  • রিকন্ডিশন গাড়ি কেনার ক্ষেত্রে ব্যাংক কর্তৃপক্ষ কর্তৃক আপনাকে লোন এর মেয়াদ সর্বোচ্চ চার বছর অন্যদিকে নতুন গাড়ি কেনার ক্ষেত্রে লোন এর মেয়াদ 5 বছর।
  • সুদের হার ব্যাংক দ্বারা নির্ধারিত হয়েছে।
  • রিকন্ডিশন গাড়ি কেনার জন্য সর্বোচ্চ 2 কোটি টাকা এবং নতুন গাড়ি কেনার জন্য সর্বোচ্চ তিন কোটি টাকা লোন প্রদান করা হয়।
  • আবেদনকারীর বয়স নূন্যতম 21 বছর এবং সর্বোচ্চ 65 বছরের মধ্যে সীমাবদ্ধ থাকতে হবে।

রিয়েল স্টেট বিনিয়োগ

আপনি রিয়েল এস্টেট ব্যবসার সাথে জড়িত থাকেন তাহলে আপনার জন্য ইসলামী ব্যাংক লোন নেওয়ার সুব্যবস্থা করেছেন। ডেভলপারদের জন্য সর্বোচ্চ চার বছর এবং বাণিজ্যিক ভবন নির্মাণের জন্য সর্বোচ্চ 8 থেকে 10 বছর মেয়াদে বাণিজ্যিক ভবন নির্মাণ ও ব্যবসার জন্য ইসলামী ব্যাংক ঋণ প্রদান করছে।

  • ডেভলপারদের জন্য নির্মাণ খরচ এর সর্বোচ্চ 30% এবং ব্যতীত অন্যান্য বাণিজ্যিক ভবন নির্মাণের জন্য নির্মাণ ব্যয় 50% ব্যাংক কর্তৃক প্রদান করা হবে।
  • স্বনামধন্য ডেভলপার এবং ব্যবসায়ীরা শুধুমাত্র এই মনের জন্য বিবেচিত হবেন।
  • এ ঋণের সুদের হার 16%।

কৃষি ঋণ

আমাদের দেশ একটি উন্নয়নশীল দেশ যেখানে প্রায় 70% মানুষ প্রত্যক্ষ ও পরোক্ষভাবে কৃষির উপর নির্ভরশীল। এ সকল দিক বিবেচনা করে বাংলাদেশ ইসলামী ব্যাংক লিমিটেড কৃষকদের সাহায্য করার উদ্দেশ্যে এবং বাংলাদেশের কৃষি খাতকে উন্নয়ন করার জন্যই কৃষি ঋণ হিসাবে সর্বোচ্চ 10 লক্ষ টাকা পর্যন্ত ঋণ প্রদান করছে।

  • ঋণের পরিমাণ সর্বোচ্চ 10 লক্ষ টাকা।
  • কৃষি ঋণ পরিশোধের সময়কাল 6 মাস থেকে সর্বোচ্চ পাঁচ বছর পর্যন্ত তবে ব্যাংক কর্তৃপক্ষ চাইলে তা কমাতে পারে।
  • ইসলামী ব্যাংক লিমিটেড কর্তৃপক্ষ আপনার ঋণ হিসেবে নিরব এক লক্ষ টাকা পর্যন্ত জামানত নিতে পারে।

ইসলামী ব্যাংক লিমিটেড লোনের আবেদন এর নিয়ম

ওপরের অংশে আমরা আপনাদের ইসলামী ব্যাংক লিমিটেড কতৃক দেশ কোনগুলো প্রদান করা হয় তার বিস্তারিত আলোচনা করেছি। প্রথমেই আপনি যে ধরনের লোন গ্রহণ করতে চান তা নির্বাচন করুন এবং প্রয়োজনীয় কাগজপত্র সংগ্রহ করে নিকটস্থ যে কোন শাখায় লোন কর্মকর্তার সাথে আলাপ করুন।

আপনার থেকে প্রয়োজনীয় কাগজপত্র চাওয়া হবে এবং আপনাকে একটি লোন গ্রহণ করার আবেদন ফরম দেওয়া হবে। আপনার আবেদন ফরম টি যথাযথ তথ্য দিয়ে পূরণ করুন। নির্ধারিত স্থানে আপনার ছবি এবং একজন ক্যালেন্ডার হিসেবে অন্য জনের ছবি সংযুক্ত করুন। ব্যাংক কর্তৃপক্ষ আপনার তথ্যগুলো যাচাই-বাছাই করার পর আপনি লোনের জন্য যোগ্য কিনা তা নির্ধারণ করবে।

আমরা আশা করছি ইসলামী ব্যাংক বাংলাদেশ লিমিটেড এর বিভিন্ন বিনিয়োগ সম্পর্কে আপনারা ইতিমধ্যে ধারণা পেয়েছেন। ইসলামী ব্যাংকসহ অন্যান্য দেশের যেকোনো ব্যাংকের লোন সম্পর্কে তথ্য জানার জন্য আমাদের নিচে কমেন্ট বক্সে আপনার মূল্যবান মন্তব্য করতে পারেন।