বিকাশ নম্বর দিয়ে মালিকের নাম বের করার নিয়ম ২০২২

মোবাইল ব্যাংকিং সেবা বলতে আমরা বিকাশকেই বুঝি কারণ এই জনপ্রিয় মোবাইল ব্যাংকিং কম্পানি দেশের সবচেয়ে কম রেটে মানি ট্রানজেকশন এর পাশাপাশি প্রতিটি বিভাগীয় শহর উপজেলা জেলা নিজেদের এজেন্ট নিয়োগ প্রদান করেছেন। বিকাশের অসাধারণ সব ফিচারের প্রতি আকর্ষিত হয়ে বাংলাদেশের বেশিরভাগ মানুষ বর্তমানে মোবাইল ব্যাংকিং সেবা হিসেবে বিকাশকে তালিকার শীর্ষে রেখেছে।

আপনারা যারা বিকাশ ব্যবহার করেছেন তারা ইতিমধ্যে উপলব্ধি করতে পেরেছেন যে বিকাশ কর্তৃপক্ষ একই নম্বর দিয়ে একাধিক বিকাশ একাউন্ট খোলার কোনো ব্যবস্থা রাখে নি। বর্তমানে বিকাশ এর মাধ্যমে ডুবলিকেট বিকাশ একাউন্ট বন্ধ করা হচ্ছে শুধুমাত্র ব্যবহারকারীদের নিরাপত্তার স্বার্থে।

বিকাশ একাউন্ট এমন একটি অ্যাকাউন্ট যেখানে বিভিন্ন ব্যাংক যুক্ত আছে ব্যাংক বিকাশ একাউন্টে এবং ভিসা মাস্টার কার্ড হতে বিকাশে টাকা আনা যায় এখন খুব সহজেই। মনে করুন আপনি একজনকে টাকা পাঠাবেন এ অবস্থায় উক্ত ব্যক্তি কি বিকাশ একাউন্টের মালিক তার সম্পর্কে জানার জন্য গুরুত্বপূর্ণ তথ্য। এ অবস্থায় আপনি অবশ্যই যাচাই করার পরেই ওই নাম্বারে মানে ট্রানজেকশন করবেন।

এ অবস্থায় আপনার জন্য বিকাশ নম্বর দিয়ে মালিকের নাম বের করা অত্যন্ত জরুরি কিন্তু আপনি যদি তা না জেনে থাকেন তাহলে আপনাদের জন্য আমাদের আজকের এই আর্টিকেলটি লেখা হয়েছে। আমরা এখানে বিকাশ নম্বর দিয়ে মালিকের নাম বের করার নিয়ম বিস্তারিতভাবে আলোচনা করেছি।

বিকাশ একাউন্ট কার নামে আছে?

বিকাশ একাউন্ট কার নামে আছে এ তথ্যটি জানা যদি আপনার কাছে জরুরী মনে হয় তাহলে আপনাদের জন্য সুখবর হলো আমরা আপনাদের সাথে বিশেষ দিকটি নিয়ে আলোচনা করতে চলেছি। আপনারা ইতিমধ্যে উপলব্ধি করেছেন জেবা ঊইকিপিডিয়া ইন্টারনেট থেকে জানতে পেরেছেন বিকাশ ব্রাক ব্যাংক এর আওতাভুক্ত একটি মোবাইল ব্যাংকিং সেবা। সুতরাং আপনারা যারা বিকাশ একাউন্ট কার নামে আছে তা যাচাই করতে চান এক্ষেত্রে আপনাকে ব্রাক ব্যাংকের যে অফিশিয়াল ওয়েবসাইটে ওয়েবসাইটে প্রবেশ করতে হবে। চলুন জেনে নেওয়া যাক বিকাশ একাউন্ট কার নামে আছে তা সম্পর্কে বিস্তারিত জানি।

বিকাশ সেভিংস একাউন্ট খোলার নিয়ম

  • প্রথমে আপনাকে ব্রাক ব্যাংকের অফিসিয়াল ওয়েবসাইটে প্রবেশ করতে হবে।
  • অফিশিয়াল বম্বেদ আসার পর সাইন-ইন অথবা লগইন অপশন এ ক্লিক করুন। মনে রাখবেন আপনি যদি পূর্বে ব্র্যাক ব্যাংকের অফিশিয়াল ওয়েবসাইটে রেজিস্টার করে থাকেন তাহলে আইডি পাসওয়ার্ড ব্যবহার করে লগইন করতে পারবেন। অন্যদিকে আপনি যদি রেজিস্ট্রেশন না করেন তাহলে নিচের অংশে সাইনআপ অপশনে ক্লিক করুন।
  • উপযুক্ত তথ্য দিয়ে আপনার রেজিস্ট্রেশন সম্পন্ন করুন।
  • আপনার রেজিস্ট্রেশন সম্পন্ন হলে লগইন করে আপনার বিকাশের ড্যাশবোর্ডে প্রবেশ করুন।
  • সেখানে গিয়ে আপনারা বিকাশের ফান ট্রান্সফারের এবং কার্ড পেমেন্ট যেতে হবে। সেখানে গেলে আপনারা নিচের দিকের তিন নম্বর ঘরে বিকাশ একাউন্ট ট্রানসফার এর ঘরে প্রবেশ করবেন।
  • সেখানে প্রবেশ করলে আপনারা একটি বক্স। শে বক্স এর প্রথম ঘরেই আপনারা যে নাম্বারে বিকাশ ট্রান্সফার করবেন সে বিকাশ নাম্বার দিবেন।
  • পরিশেষে আপনি যে নাম্বারে টাকা লেনদেন করবেন সে নাম্বারটি প্রদান করলে উক্ত ব্যক্তির নাম সহ ছবি দেখতে পাবেন।

বিকাশ একাউন্ট কার আইডি দিয়ে খোলা

বিকাশ একাউন্ট খোলার জন্য একটি জাতীয় পরিচয় পত্র দরকার হয় এবং বিকাশ কর্তৃপক্ষ সাধারণত একটি জাতীয় পরিচয় পত্র দিয়ে বর্তমানে একটি একাউন্ট খোলার নির্দেশনা দিয়েছ। অনেক সময় বিকাশ একাউন্ট কার আইডি কার্ড দিয়ে খোলা হয়েছে এ তথ্যটি জানা আমাদের জন্য গুরুত্বপূর্ণ কেননা যখন বিকাশ একাউন্ট খোলা হয় তখন আপনি হয়তো আপনার পরিবারের অন্য কোনো ব্যক্তির জাতীয় পরিচয় পত্র ব্যবহার করে অ্যাকাউন্ট খুলেছিলেন।

বিকাশে ভুল নাম্বারে টাকা চলে গেলে ফিরিয়ে আনার উপায়

আপনার বিকাশ একাউন্টটি কার আইডি দিয়ে খোলা রয়েছে যদি আপনি এই তথ্যটি জানতে চান তাহলে আপনাকে নিকটস্থ বিকাশ কাস্টমার এজেন্ট রয়েছে সেখানে সরাসরি যোগাযোগ করতে হবে। তবে বিকাশ কাস্টমার সার্ভিস সেন্টারে যাওয়ার সময় আপনি যে মোবাইল নাম্বারের তথ্য বের করতে চান সেই মোবাইল নাম্বারটি সচল অবস্থায় অফিসে প্রবেশ করতে হবে। কাস্টমার সার্ভিস সেন্টার এর অফিশিয়াল আপনার নম্বর যাচাই করার পর বিকাশ একাউন্টের তথ্য প্রকাশ করবে।