বিকাশ একাউন্ট বন্ধ করার নিয়ম ২০২২ – ঘরে বসে বিকাশ একাউন্ট বন্ধ করুন

By | April 17, 2022

বাংলাদেশের সবচেয়ে জনপ্রিয় মোবাইল ব্যাংকিং সেবা বিকাশ। সময়ের সাথে সাথে দেশের প্রতিটি মানুষের কাছে এই মোবাইল সেবাটি পৌঁছে যাচ্ছে। কোন কারণে আপনি যদি বিকাশ ব্যবহার করতে আগ্রহী না হয়ে থাকেন এ অবস্থায় আপনি অবশ্যই চাইবেন আপনার বিকাশ একাউন্টটি বন্ধ করতে।

যার জন্য আপনাকে অত্যন্ত জরুরী জানা যায় বিকাশ অ্যাকাউন্ট কিভাবে বন্ধ করতে হয় তার সম্পর্কে। আজকের এই পোস্টে আমরা আপনাদের শেখাবো কিভাবে ঘরে বসে থেকে বিকাশ একাউন্ট বন্ধ করবেন।

বিকাশ একাউন্ট কেন বন্ধ করবেন?

আমরা ঘরে বসে থেকে দেশের এক প্রান্ত থেকে অন্য প্রান্তে টাকা আদান প্রদান ও লেনদেনের ক্ষেত্রে বিকাশ মোবাইল সেবা ব্যবহার করে থাকি। মোবাইল ব্যাংকিং সেবা বলতে আমরা বিকাশকেই বুঝে যার জন্য আমাদের প্রত্যেকেরই বিকাশ একাউন্ট রয়েছে কিন্তু কোন কোন কারণের কারণে আপনি বিকাশ একাউন্ট বন্ধ করতে চাইবেন তা সম্পর্কে বেশ কিছু নির্দেশনা এখানে প্রকাশ করা হলো।

বিদেশ ভ্রমণ

বিদেশ থেকে বিকাশে টাকা পাঠানো সম্ভব হলেও বিকাশ ব্যবহার করা যায় না দেশি অপারেটরের সিম যেহেতু সরাসরি বিদেশে চলে না এই কারণে বিদেশে *247# অর্থাৎ ডায়াল কোড ব্যবহার করে বিকাশ ব্যবহার করা সম্ভব নয়। অন্যদিকে আপনি মোবাইল অ্যাপ্লিকেশন ব্যবহার করেও বিকাশ একাউন্টে লগইন করতে পারবেন না।

যাতে আপনি অবশ্যই সাহেবের বিদেশগমন কালে অবশ্যই আপনার বিকাশ একাউন্টটি বন্ধ করতে। বিদেশ থেকে টাকা পাঠানোর ক্ষেত্রে মনোনীত এক্সচেঞ্জ হাউজ সমূহ ব্যবহার করা যেতে পারে তবে মূল কথা হচ্ছে বিদেশে কোনভাবেই বিকাশ একাউন্ট কাজ করা সম্ভব নয় তাই বিদেশে একাউন্ট গমনের কারণে আপনি অবশ্যই আপনার বিকাশ একাউন্ট বন্ধ করতে পারেন।

সিম বন্ধ করা

মনে করুন আপনার কোন সিম হারিয়ে গিয়েছে বা আপনি কোন একটি সিম বন্ধ করে দিতে চান আপনি যে সিম টি বন্ধ করতে চান সেই সিমে বিকাশ একাউন্ট খোলা রয়েছে এ অবস্থায় আপনি অবশ্যই চাইবেন বিকাশ একাউন্ট বন্ধ করতে। যেহেতু আপনি উক্ত সিম আপনি আর পুনরায় ব্যবহার করবেন না তাই তা থেকে বিকাশে লেনদেন সম্ভব হবে না তাই আপনার জন্য বিকাশ একাউন্টটা বন্ধ করা অত্যন্ত জরুরি।

ফোন নাম্বার পরিবর্তন

বিকাশ একাউন্ট খুলতে সাধারণত একটি মোবাইল নাম্বার দরকার হয় অর্থাৎ ফোন নাম্বার পরিবর্তন করতে চাইলে আপনি আগের সিমে বিকাশ একাউন্ট বন্ধ করে নতুন যে সিম আপনার মোবাইলের ব্যবহার করবেন তা দিয়ে নতুন বিকাশ একাউন্ট খুলতে হবে। এক্ষেত্রে আপনার কোন ভুল লেনদেনের শিকার না হতে চাইলে ফোন নাম্বার পরিবর্তন এর আগে আপনি অবশ্যই বিকাশ একাউন্ট বন্ধ করবেন।

একাধিক একাউন্ট

একটি মোবাইল নাম্বার দিয়ে শুধুমাত্র একটি বিকাশ একাউন্ট খোলা গেলেও আপনার হয়তো একাধিক অ্যাকাউন্ট থাকতে পারে এমন অবস্থায় একাউন্টে লেনদেন করা আপনার পক্ষে সম্ভব হচ্ছে না তাই আপনি শুধুমাত্র একটি অ্যাকাউন্ট ব্যবহার করতে চান। অন্যপ্রকাশ মোবাইল সেবা ব্যবহার না করে অন্য কোন মোবাইল ব্যাংকিং সেবা যেমন নগদ রকেট ইত্যাদি ব্যবহার করতে চাইলেও সে ক্ষেত্রে আপনি অবশ্যই বিকাশ একাউন্ট বন্ধ করার সিদ্ধান্ত গ্রহণ করতে পারেন।

প্রতারণা থেকে বাঁচতে

বর্তমানে বিকাশ মোবাইল সেবার নামে অনেক প্রতারণা চক্র গ্রাহকদের মাঝে কল করে তাদের পিন নাম্বার ব্যবহার করে গ্রাহকদের প্রতারণার ফাঁদে পা দেওয়া আছে প্রতারণা থেকে বাঁচার জন্য আপনি চাইবেন আপনার বিকাশ একাউন্টটি বন্ধ করতে।

নতুন একাউন্ট খোলা

নতুন অ্যাকাউন্ট খোলা বিকাশ একাউন্ট বন্ধ করার অন্যতম একটি কারণ বলে ধরা হয়েছে অনেকেই আগের বিকাশ একাউন্ট বন্ধ করে নতুন বিকাশ একাউন্ট তৈরী করতে চান।

কেননা পূর্বে যে বিকাশ একাউন্ট খোলা হয়েছিল সেই একাউন্টে পরিবারের অন্য সদস্য জাতীয় পরিচয়পত্র ব্যবহার করে তৈরি করা হয়েছে কিন্তু আপনি বর্তমানে আপনার জাতীয় পরিচয় পত্র পেয়েছেন এ অবস্থায় আপনি অবশ্যই চাইবেন আপনার বিকাশ একাউন্টটি নিজের জাতীয় পরিচয় পত্র দিয়ে খোলা।

বিকাশ একাউন্ট বন্ধ করতে কি কি লাগে?

উপরের দেওয়া নির্দেশনাগুলো আর যদি আপনি বিকাশ একাউন্ট বন্ধ করতে আগ্রহী হয়ে থাকেন তাহলে বেশ কিছু জিনিসপত্রের প্রয়োজন হবে।

সিম কার্ড

প্রথমেই আপনি যে সিমে বিকাশ একাউন্ট খোলা আছে সেই সিম প্রয়োজন হবে। উক্ত সিম টি যদি হারিয়ে যায় তবে তাহলে আপনাকে সিম তোলার ব্যবস্থা করতে হবে। কেননা বিকাশ একাউন্ট বন্ধ করার ক্ষেত্রে আপনার পূর্বের সিমটি অত্যন্ত জরুরী।

জাতীয় পরিচয় পত্র আইডি কার্ড

বিকাশ একাউন্ট বন্ধ করতে আপনার বাজে জাতীয় পরিচয় পত্র দিয়ে বিকাশ একাউন্ট খোলা হয়েছিল সেই আইডি কার্ডের এক কপি ফটোকপি প্রয়োজন হবে। অবশ্যই বিকাশ অফিসে যোগাযোগ করার পূর্বে আপনি জাতীয় পরিচয় পত্র টি সংগ্রহ করুন।

বিকাশ একাউন্ট বন্ধ করার নিয়ম

উল্লেখিত সকল তথ্য সঠিক ভাবে যদি আপনি অনুসরণ করেন তাহলে আপনি বিকাশ একাউন্ট বন্ধের জন্য সম্পূর্ণ প্রস্তুত হয়ে গিয়েছেন প্রয়োজনীয় কাগজপত্র নিকটস্থ বিকাশ কাস্টমার কেয়ার এ যোগাযোগ করুন এবং একাউন্ট বন্ধের কথা জানান এরপর প্রয়োজনীয় কাগজপত্র কাস্টমার কেয়ার এজেন্টকে জমাদান করুন এবং বিকাশ একাউন্ট বন্ধের প্রক্রিয়া সম্পর্কে জানুন।

আপনি যদি নিজের জাতীয় পরিচয় পত্র ব্যবহার করে বিকাশ একাউন্ট বন্ধ করতে চান তাহলে নিজের সকল প্রয়োজনীয় কাগজপত্র সাথে করে নিয়ে যান এবং অন্য কারো জাতীয় পরিচয় পত্র ব্যবহার করলে উক্ত ব্যক্তিসহ জাতীয় পরিচয়পত্র নিয়ে যেতে হবে। বিকাশ একাউন্ট বন্ধ করে নতুন একাউন্ট খোলার ক্ষেত্রে আপনি অবশ্যই আপনার জাতীয় পরিচয়পত্রের সঙ্গে নিয়ে যেতে পারেন।

বিকাশ একাউন্ট বন্ধের আগে করণীয়

বিকাশ একাউন্ট বন্ধ করার আগে অবশ্যই উপরের উল্লেখিত কাগজপত্র সংগ্রহ করে এক স্থানে একটি ফাইলবন্দী করুন। এরপর আপনি যে বিকাশ একাউন্ট বন্ধ করতে চান সেই বিকাশ একাউন্টের ব্যালেন্স 0 করুন। বিকাশ একাউন্ট ব্যালেন্স খালি করার ক্ষেত্রে অন্য একটি বিকাশ নাম্বারে টাকা প্রেরণ করে আপনার টাকার 0 করতে পারেন।

পরিশেষে আমরা আপনাদের বলতে চাই যে বিকাশ দেশের সবচেয়ে জনপ্রিয় মোবাইল ব্যাংকিং সেবা এবং গ্রাহকদের সর্বোচ্চ সেবা প্রদান করে চলেছে দীর্ঘদিন যাবত। তাই আপনি যদি বিকাশ ব্যবহারকারী হয়ে থাকেন তাহলে অবশ্যই বিকাশ একাউন্টটি সচল রাখবেন। বিকাশ সহ অন্যান্য যেকোনো মোবাইল সেবার কোন তথ্য জানার জন্য নিয়মিত আমাদের আর্টিকেল পড়তে থাকুন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *