মোবাইলে ফ্রিল্যান্সিং করে ইনকামের উপায় ২০২২ প্রতি মাসে ২০০০০ টাকা

By | April 5, 2022

তথ্য প্রযুক্তির উন্নতির ছোঁয়ায় বর্তমানে প্রতিটি মানুষের হাতে স্মার্টফোন পৌঁছে গিয়েছে। বিশেষ করে কম দামে অসাধারন সব ফিচার ফোন বাজারে আসার কারণে এখন প্রায় ব্যক্তির কাছেই স্মার্টফোন রয়েছে। আপনি হাতের স্মার্ট ফোন ব্যবহার করে মোবাইলের মাধ্যমে ফ্রিল্যান্সিং করে টাকা ইনকাম করার সম্পর্কে অনেক ব্লগ পোষ্ট পড়ে থাকবেন। তবে আজকে আপনাদের উদ্দেশ্যে আমরা এমন কিছু উপায় জানাব যেগুলো ব্যবহার করে আপনি ফ্রিল্যান্সিং করে টাকা ইনকাম করতে পারবেন।

টাকা ইনকাম করার ক্ষেত্র হিসেবে আমরা সব সময় ভাবি যে একটি কম্পিউটার জরুরী। কিন্তু আপনার দের জন্য আমরা আজকের এই আর্টিকেলটি সাজিয়েছি মোবাইল অথবা একটি স্মার্ট ফোন ব্যবহার করে টাকা ইনকাম করার পদ্ধতি নিয়ে। আপনার সামান্য ইচ্ছা ও সঠিক দক্ষতা থাকলে আপনি দামি কম্পিউটার ছাড়াও হাতের স্মার্ট ফোন ব্যবহার করে টাকা ইনকাম করতে পারবেন।

ফ্রিল্যান্সিং কাজ করার জন্য কিসের প্রয়োজন?

ফ্রিল্যান্সিং করার ক্ষেত্রে আপনাকে বিশেষ দিকে দৃষ্টিপাত করতে হবে আমরা এখানে ফ্রিল্যান্সিং করে টাকা ইনকাম করার জন্য কয়েকটি ধাপে এখানে বিস্তারিত আলোচনা করেছি। আপনি অবশ্যই আমাদের পুরো আর্টিকেলটি পড়বেন এবং সঠিক তথ্য জানতে পারবেন। আপনাদের মধ্যে অনেকেই রয়েছেন যারা জানতে চেয়েছেন ফ্রিল্যান্সিং কাজ করার জন্য কিসের প্রয়োজন তাদের উদ্দেশ্যে বলতে চাই যে ফ্রিল্যান্সিং করার ক্ষেত্রে আপনাকে বেশকিছু দিকে নজরদারি করতে হবে।

Screenshot-2022-04-05-at-10-58-37-PM

দক্ষতা ও ধৈর্য

প্রতিযোগিতা দেই বাজারে দক্ষতা ছাড়া সফলতা অর্জন করা প্রায় অসম্ভব। আপনি যদি মনে করেন কয়েক দিনে ইন্টারনেটে কাজ করে অনেক টাকা ইনকাম করতে পারবেন তাহলে এ ধারণাটা সম্পূর্ণ ভুল। কেননা ইন্টারনেট জগতে অনেক ব্যক্তি রয়েছে যারা ফ্রিল্যান্সিং জগতে দীর্ঘদিন যাবত কাজ করে এসেছে। ফ্রিল্যান্সিং কাজ করার জন্য আপনাকে অবশ্যই একজন দক্ষ হতে হবে এবং কাজ করার পর্যাপ্ত সময় দিতে হবে। তাহলে আপনি একজন সফল ফ্রিল্যান্সার হতে পারবেন।

ফ্রিল্যান্সিং প্লাটফর্ম বাছাই

আমরা পূর্বেই বলেছি যে ফ্রিল্যান্সিং জগতের সফল হওয়া সহজ তবে যদি আপনার অধিক দক্ষতা থাকে। আপনি কিন্তু চাইলে সকল ফ্রিল্যান্সিং প্লাটফর্মে সরাসরি অংশগ্রহণ করতে পারবেন না। বিশ্বব্যাপী অসংখ্য ফ্রিল্যান্সিং প্ল্যাটফর্ম থাকলেও আপনাকে আপনার সুবিধামতো যেকোনো একটি প্ল্যাটফরম ধরে কাজ করতে হবে। আপনি যে বিষয়ে দক্ষ এবং অভিজ্ঞ সে বিষয়টি অবশ্যই নির্বাচন করতে হবে।

অনলাইনে ছবি বিক্রি করে টাকা ইনকাম

শুরুতে আপনাকে ফাইবার ওয়ার্ক এর মাধ্যমে যেকোনো একটি প্ল্যাটফর্ম বেছে নিবেন। কেননা এই দুইটি ওয়েবসাইটে ফ্রিল্যান্সারদের জন্য অধিক গুরুত্বপূর্ণ। কেননা এদের নিজস্ব অফিশিয়াল ওয়েবসাইট এর পাশাপাশি মোবাইল অ্যাপ্লিকেশন রয়েছে যার কারণে আপনি মোবাইল ব্যবহার করে এ সকল ফ্রিল্যান্সিং প্লাটফর্মে কাজ করার সুযোগ পাবেন।

কাজের জন্য আবেদন করা

আপনার ফ্রিল্যান্সিং প্ল্যাটফর্ম বাছাইয়ের পর উক্ত প্লাটফর্মে মোবাইল অ্যাপ্লিকেশন টি ডাউনলোড করতে হবে। মোবাইল অ্যাপ্লিকেশন টি চালু করে প্রথমেই হয় বার অথবা আপওয়ার্কে রেজিস্ট্রেশন করতে হবে। রেজিষ্ট্রেশন করার ক্ষেত্রে আপনাকে প্রয়োজনীয় সকল তথ্য প্রদান করতে হবে। কেননা অ্যাপ ব্যবহার করে ক্লায়েন্টের সাথে সরাসরি যোগাযোগ করা প্রপোজাল পাঠানো এবং কাজের ধারা বজায় রাখতে বেশ সুবিধা হয়।

মোবাইলে ফ্রিল্যান্সিং করে ইনকামের উপায়

উপরের আলোচনার ভিত্তিতে ফ্রিল্যান্সিং বিষয়ে আপনার মোটামুটি একটি ধারণা চলে এসেছে। এবার আপনাকে মোবাইলে ফ্রিল্যান্সিং করে টাকা ইনকাম করার উপায় সম্পর্কে আলোচনা করব। টাকা ইনকাম করার ক্ষেত্রে আপনাকে প্রথমেই বলে রাখি আপনি যেই স্মার্টফোনটি ব্যবহার করবেন তা যেন প্রসেসর ভালো হয়ে থাকে অন্যদিকে হাইস্পিড ইন্টারনেট কানেক্ট থাকলে আপনার কাজের অনেক সুবিধা হয়।

ডিজিটাল মার্কেটিং শিখে টাকা আয়

মোবাইল ব্যবহার করে ফ্রিল্যান্সিং করার ক্ষেত্রে আপনার কাছে প্রধান প্রশ্ন হয়ে দাঁড়াতে পারে একই ধরনের ফ্রিল্যান্সিং কাজ স্মার্টফোনের মাধ্যমে করা যায়। আপনাদের উদ্দেশ্যে বলতে চাই যে বর্তমানে প্রযুক্তির উন্নয়নে ফোনের মাধ্যমে অনেক ধরনের ফ্রিল্যান্সিং কাজ করা সম্ভব। আমরা আলোচনার এই অংশে ধাপে ধাপে প্রতিটি পদ্ধতি নিয়ে আলোচনা করেছি।

গ্রাফিক্স ডিজাইন

গ্রাফিক ডিজাইন বর্তমান সময়ের সবচেয়ে বেশি চাহিদা সম্পন্ন স্কেল তবে গ্রাফিক ডিজাইন করে টাকা ইনকাম করার ক্ষেত্রে আপনাকে অবশ্যই অভিজ্ঞ থাকতে হবে। আপনারা অনেকে মনে করতে পারেন ফটোশপ বা এডোবি ইলাস্ট্রেটর ছাড়া মোবাইলে গ্রাফিক ডিজাইন কিভাবে সম্ভব তাদের উদ্দেশ্যে আমরা বলতে চাই যে বেশকিছু মোবাইল অ্যাপ্লিকেশন রয়েছে যেমন ক্যানভা পিক্স আর্ট পিক্স ল্যাব ইত্যাদি এসকল অ্যাপগুলো প্রফেশনাল কাজের জন্য অত্যন্ত জরুরী। আপনি চাইলে বিভিন্ন ইউটিউব চ্যানেলে সকল মোবাইল অ্যাপ্লিকেশনগুলোর কিভাবে কাজ করে তা সম্পর্কে বিস্তারিত ধারণা নিতে পারেন।

সার্ভে করে টাকা আয়

সোশ্যাল মিডিয়া ম্যানেজমেন্ট

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমগুলোর সম্পর্কে যদি আপনার ভাল ধারনা থাকে তাহলে আপনি এই দক্ষতাকে কাজে লাগিয়ে মোবাইল থেকে ফ্রিল্যান্সিং করে টাকা ইনকাম করতে পারবেন। মূলত অন্যজনের সোশ্যাল মিডিয়াতে পোস্ট সিডিউল ম্যানেজমেন্ট ইত্যাদি বিষয়ে কাজ করা হলো একজন সোসিয়াল মিডিয়া ম্যানেজারের দায়িত্ব। বাফার এর মত মোবাইল অ্যাপ্লিকেশন ব্যবহার করে সোশ্যাল মিডিয়ার কাজগুলো আপনি খুব সহজেই করতে পারবেন।

ফ্রিল্যান্স রাইটিং

ফ্রীলান্স রাইটিং এর কাজ ফোনে কোন ধরনের বাধা ছাড়াই করা সম্ভব। গুগোল ডকস মাইক্রোসফট ওয়ার্ড অফিস এ ধরনের অ্যাপ্লিকেশনগুলো ব্যবহারের পাশাপাশি আপনার রাইটিং স্কিল ঠিক রাখার জন্য গ্রামার এর মতো বিভিন্ন টুল ব্যবহার করে ফ্রিল্যান্সিং রাইটিং এর কাজ করতে পারবেন।

ভয়েস-ওভার

আপনার কাছে যদি একটি রিসেন্ট মাইক্রোফোন থাকে তবে ভয়েস ওভার এর কাজ করে মোবাইল থেকে টাকা ইনকাম করা সম্ভব। একটি ভালো মাইক্রোফোন থাকলে তা ফ্রিল্যান্সিংয়ের কাজে আপনার বিশেষ ভূমিকা পালন করবে। কেননা একটি মাইক্রোফোন যে কোনো কার্যকর অডিও রেকর্ডিং এডিট করার অ্যাপস দিয়ে ভয়েস ওভার এর কাজ করা সম্ভব।

পরিশেষে আমরা আমরা আপনাদের বলতে চাই যে মোবাইলের প্রতি আসক্ত না হয়ে তার যথাযথ ব্যবহার করুন। কেননা প্রতিটি সময় অত্যন্ত মূল্যবান। আপনার এই মূল্যবান সময়কে কাজে লাগিয়ে আপনি মাসে অনেক টাকা ইনকাম করতে পারবেন। আমাদের দেওয়া পুরো আর্টিকেলটি যথাযথভাবে অনুসরণ করলে আপনি দৈনিক 700 টাকার বেশি ইনকাম করতে পারবেন। আমাদের পাশে থাকার জন্য আপনাকে অসংখ্য ধন্যবাদ।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *