জন্ম নিবন্ধন ১৭ ডিজিট করার নিয়ম ২০২২

2009 সালের শুরুর দিকে যখন জন্ম নিবন্ধন করার কার্যক্রম চালু হয়। সেসময় জন্ম নিবন্ধন সনদের হাতে লেখা হতো এবং নিবন্ধন নাম্বার 16 ডিজিটের ছিল। 2013 সালের পর বাংলাদেশ সরকার কর্তৃক জন্ম নিবন্ধন ডিজিটাল করার নতুন উদ্যোগ গ্রহণ করা হয়। যার কারণে পূর্বের হাতে লেখা জন্ম সনদ ডিজিটাল পদ্ধতিতে করার জন্য সকল নাগরিককে নির্দেশনা দেয়া হয়।

জন্ম নিবন্ধন সিস্টেম আপডেট করার কারণে এ ধরনের 16 ডিজিটের জন্ম নিবন্ধন যাচাই করলে অনলাইনে নিবন্ধন সংক্রান্ত তথ্য পাওয়া যায় না। আপনি যদি এই সকল সমস্যার সম্মুখীন হয়ে থাকে তাহলে এক্ষুনি আপনার হাতের লেখা 16 ডিজিটের জন্ম নিবন্ধন কার্ড ডিজিটাল পদ্ধতিতে নিবন্ধন করে 17 ডিজিটাল শুদ্ধ নাম্বারটি বের করুন। আজকের আলোচনায় আমরা আপনাদের জন্ম নিবন্ধন 17 ডিজিট করার নিয়ম সম্পর্কে বিস্তারিত তথ্য উপস্থাপন করব।

১৬ ডিজিটের জন্ম নিবন্ধন যাচাই এর সমস্যা

আলোচনার শুরুতে আমরা আপনাদের দেখাবো 16 ডিজিটের জন্ম নিবন্ধন নাম্বার থাকলে আপনি কোন কোন সমস্যার সম্মুখীন হতে পারেন। সর্বপ্রথম যখন জন্ম নিবন্ধন ব্যবস্থা চালু হয় তখন ইউনিয়ন পরিষদ বা পৌরসভায় নিবন্ধন রেজিষ্টারে ব্যক্তিত্ব তালিকা আকারে সংরক্ষণ করা হয় এবং একটি প্রিন্টেড হাতে লিখে জন্ম সনদ প্রদান করা হতো। যার কারণে ওই সময়ে যে সকল নাগরিকগণ জন্ম নিবন্ধন করেছিলেন তারা 16 ডিজিটের জন্ম নিবন্ধন নম্বর পেয়েছেন।

পরবর্তীতে ইন্টার সুবিধা বৃদ্ধি ও সরকারি সকল সেবা ডিজিটালাইজেশনের কারণে জন্ম নিবন্ধন সেক্টরেও অনলাইন ভিত্তিক সিস্টেম চালু করা হয়। তাছাড়া জনসংখ্যা বৃদ্ধির হার চিন্তা করে নিবন্ধন নাম্বার 16 ডিজি থেকে বাড়িয়ে 17 ডিজিটের করা হয়। বর্তমানে ডিজিটাল জন্ম নিবন্ধন নম্বর গুলো সাধারণত 17 ডিজিটের হয়ে থাকে।

এরপরে ডাটাবেজের সকল তথ্যাবলী অনলাইনে সংরক্ষিত থাকে অনলাইনে নতুন কোন তথ্য আপলোড করার কোন পদ্ধতি বর্তমানে চালু হয়নি। যার কারণে অনেকের নিবন্ধন তথ্য আপলোড করা ভুলে বাদ পড়ে যেতে পারে তাই সে ক্ষেত্রে জন্ম নিবন্ধন ভেরিফিকেশন করতে গেলে নো রেকোর্ড Found এ সমস্যায় ভুগতে হতে পারে। এই সমস্যা থেকে বাঁচার জন্যই আপনাকে 16 ডিজিটের জন্ম নিবন্ধন যাচাই করে তা 17 ডিজিটের নিবন্ধিত করতে হবে।

জন্ম নিবন্ধন ১৭ ডিজিট করার নিয়ম

জন্ম নিবন্ধন 17 ডিজিট করার জন্য একটি নির্দিষ্ট পদ্ধতি রয়েছে। আপনার হাতে লেখা 16 ডিজিটের জন্ম নিবন্ধন নম্বর এর শেষ 5 ডিজিট এর পূর্বে একটি 0 যোগ করে অথবা প্রথম 11 ডিজিটের পর শূন্য যোগ করে 17 ডিজিট করতে পারবেন। সাধারণত জন্ম সনদের নম্বরগুলো প্রথম 4 ডিজিট ব্যক্তির জন্ম সাল এবং শেষ 6 ডিজিট ব্যক্তিত্ব পরিচিতি নাম্বার। সুতরাং পূর্বে জন্ম সনদে ব্যবহৃত শেষ 5 ডিজিট ব্যক্তিগত পরিচিতি নম্বর ছিল সেটাকে আপনি 6-digit করার জন্য শুরুতে একটি 0 যোগ করতে পারেন।

Screenshot-2022-03-29-at-11-11-09-AM

এখন খেয়াল করে দেখুন ০১৩১১ নিবন্ধন নাম্বারের শেষে 5 ডিজিট হচ্ছে এখন আপনাকে এর ঠিক শুরুতে একটি 0 দিতে হবে যেমন ০০১৩১১। আশা করবো আপনি আপনার সমস্যার সমাধান করতে পেরেছেন।

১৬ ডিজিটের জন্ম নিবন্ধন নম্বর কিভাবে ১৭ ডিজিট করব?

16 ডিজিটের 15 নিবন্ধন নম্বর এর শেষ পাঁচ ডিজিট এর পূর্বে একটি শুন্য বসিয়ে আপনি সহজেই 17 ডিজিট করতে পারবেন অবশ্যই 17 ডিজিটের নম্বরটি অনলাইনে যাচাই করে আপনার তথ্য সঠিক হলে বুঝতে পারবেন যে আপনার জন্ম নিবন্ধন নাম্বারটি সঠিক হয়েছে।

১৭ ডিজিটের জন্ম নিবন্ধন কেন অনলাইনে পাওয়া যাচ্ছে না?

আপনাদের মধ্যে অনেকেই প্রশ্ন করেছেন যে জন্ম সনদ 17 ডিজিটের কেন অনলাইনে পাওয়া যাচ্ছে না। জন্ম সনদ অনলাইনে না পাওয়া যাওয়ার দুটি কারণ হতে পারে। প্রথমটি আপনার নিবন্ধন নম্বরটি ভুল আর অন্য কারণ হতে পারে আপনার নিবন্ধন তথ্যটি ভুলবশত অনলাইনে আপডেট করা সম্পূর্ণ হয়নি। এজন্য আপনি আপনার জন্ম সনদ নিয়ে রেজিস্ট্রেশন কার্যালয় ইউনিয়ন পরিষদ পৌরসভা অথবা সিটি কর্পোরেশন অফিসে সরাসরি যোগাযোগ করতে পারেন।