ঘরে বসে সিমের মালিকানা পরিবর্তন ২০২২ (জিপি, এয়ারটেল, রবি, টেলিটক, স্কিটো, বাংলালিংক)

আপনি যদি একজন মোবাইল ফোন ব্যবহারকারী হয়ে থাকেন তাহলে আপনার ডিভাইসটিতে অবশ্য একটি সিম কার্ড ব্যবহার করা হয়। বাংলাদেশ টেলিযোগাযোগ কর্তৃপক্ষের নির্দেশ মতে একজন ব্যক্তি তার জাতীয় পরিচয় পত্র ব্যবহার করে 15 টির বেশী সিম নিবন্ধন করতে পারবেন।

সাধারণত যে ব্যক্তির জাতীয় পরিচয় পত্র ব্যবহার করে সিম কেনা হয়ে থাকে তার মালিকানাধীন এ অবস্থাতেই চলতে থাকে। আমাদের মাঝে অনেকেই রয়েছে যাদের বয়স 18 বছর না হওয়ার কারণে হয়তো পিতা-মাতা অথবা ভাইবোনের জাতীয় পরিচয় পত্র ব্যবহার করে সিমের ক্রয় করেছেন।

কিন্তু বর্তমানে তারা জাতীয় পরিচয় পত্র হাতে পেয়েছেন এ অবস্থায় তারা অবশ্যই চাইবেন নিজের নামে সিম রেজিস্ট্রেশন করতে এ অবস্থায় আপনার সিমের মালিকানা পরিবর্তন করা অত্যন্ত জরুরি। আজকের এই আর্টিকেলে আমরা আপনাদের দেখাবো বাংলাদেশের যে সকল মোবাইল অপারেটর রয়েছে সে সকল অপারেটরের সিমের মালিকানা পরিবর্তন কি করে খুব সহজে ঘরে বসে থাকে করা যায় তার বিস্তারিত সকল তথ্য। আমরা আশা করব আমাদের পুরো আর্টিকেলটি আপনি পড়বেন এবং আপনার গুরুত্বপূর্ণ তথ্য সংগ্রহ করে তা যথাযথভাবে কাজে লাগানোর করবেন।

আপনার বাবার যে যে ডকুমেন্ট লাগবে

আপনার সিম কার্ডটি যদি আপনার বাবার জাতীয় পরিচয় পত্র দিয়ে রেজিস্ট্রেশন করা থাকে তাহলে মালিকানা পরিবর্তনের সময় নিচের কাগজপত্রগুলো আপনার জরুরী হবে।

Screenshot-2022-03-21-at-10-57-04-AM

  • বাবার পাসপোর্ট সাইজের এক কপি ছবি।
  • আপনার বাবার অরিজিনাল জাতীয় পরিচয় পত্র এন আই ডি কার্ড।
  • জাতীয় পরিচয় পত্রের ফটোকপি

আবেদনকারীর যে যে ডকুমেন্ট লাগবে

  • আপনার সদ্য তোলা দুই কপি পাসপোর্ট সাইজের ছবি।
  • আপনার জাতীয় পরিচয় পত্রের অরিজিনাল কপি।
  • জাতীয় পরিচয় পত্রের ফটোকপি।
  • সাথে 50 থেকে 100 টাকা পর্যন্ত রাখবেন।

সিমের মালিকানা পরিবর্তন করার নিয়ম

বিটিআরসি কর্তৃপক্ষ কর্তিক বাংলাদেশে যে সকল সরকারি ও বেসরকারি মোবাইল অপারেটর রয়েছে তার সিমের মালিকানা পরিবর্তনের নতুন সুযোগ করে দেওয়া হয়েছে। আমরা এখানে প্রতিটি সিমের আলাদা আলাদা মালিকানা পরিবর্তন করার পদ্ধতি ধারাবাহিকভাবে আলোচনা করেছি। আপনি যে মোবাইল সিমকার্ড ব্যবহার করেন না কেন আমাদের আর্টিকেলটি পড়ে সিমের মালিকানা খুব সহজে পরিবর্তন করতে পারবেন।

জিপি সিমের মালিকানা পরিবর্তন

দেশের সর্ববৃহৎ সিম ব্যবহার করি মোবাইল কোম্পানি হচ্ছে গ্রামীণফোন। আপনার ডিভাইসটিকে যদি জিপি সিম এক্টিভেট থাকে এবং আপনার মালিকানা না থাকে এ অবস্থায় আপনি আপনার নিজের নামে মালিকানা করতে ইচ্ছুক তা হলে আপনাকে জানাতে চাই যে গ্রামীণফোন কর্তৃপক্ষ তাদের গ্রাহকদের জন্য মালিকানা পরিবর্তনের সুযোগ চালু করেছে। আপনারা চাইলে খুব সহজেই নিজের নামে মালিকানা করতে পারবেন।

গ্রামীণফোনের সিমের মালিকানা পরিবর্তন এর ক্ষেত্রে উভয় পক্ষের বায়োমেট্রিক পদ্ধতিতে মালিকানা পরিবর্তন করতে হবে। অর্থাৎ যার নামে এখন গ্রামীনফোন সিম রেজিস্ট্রেশন করা আছে ওই ব্যক্তিকে এবং নতুন যে ব্যাক্তি সিমের মালিকানা করতে চাই দু’জনকেই উপস্থিত থাকতে হবে।

যেকোনো গ্রামীণফোন কাস্টমার সার্ভিস অথবা সেন্টার থেকে আপনি সরাসরি যোগাযোগ করে বিনামূল্যে নিজের নামে সিমের মালিকানা পরিবর্তন করে নিতে পারবেন তবে অনেক ক্ষেত্রে আপনার সার্ভিস চার্জ হিসেবে 20 টাকা নেওয়া হয়ে থাকে।

যদি গ্রামীণফোন সিম ব্যবহারকারী মৃত্যুবরণ করে এ অবস্থায়ও আপনি সিমের মালিকানা পরিবর্তন করবেন তবে মালিকানা পরিবর্তন করতে যাওয়ার সময় অবশ্যই মৃত ব্যক্তির মৃত্যু সনদপত্র সঙ্গে নিয়ে যাবেন এবং ওই ব্যক্তির জাতীয় পরিচয় পত্রের ফটোকপি সঙ্গে নিয়ে যেতে হবে।

এয়ারটেল সিমের মালিকানা পরিবর্তন

আপনার মোবাইল ফোনটি তে যদি এয়ারটেল সিম সংযুক্ত থাকে এবং আপনি তার মালিকানা পরিবর্তন করতে আগ্রহ প্রকাশ করেন তাহলে নিকটস্থ এয়ারটেল কাস্টমার কেয়ার সার্ভিসেস যোগাযোগ করুন বায়ো-মেট্রিক রিটেইল পয়েন্ট এ যেতে হবে। কেননা মালিকানা পরিবর্তনের ক্ষেত্রে অভিব্যক্তির জাতীয় পরিচয় পত্রের সাথে ফিঙ্গারপ্রিন্ট প্রয়োজন হয়।

আপনার নিকটস্থ বায়োমেট্রিক রিটেইল পয়েন্ট খুঁজে পেতে *১৬০০*২# ডায়াল করতে পারেন। এছাড়া এয়ারটেল কেয়ার এর ঠিকানা জানতে *121*6# ডায়াল করুন। তাছাড়া আপনার বাড়ি জয়দীপ বিভাগীয় অঞ্চলে হয়ে থাকে যেমন ঢাকা রাজশাহী ময়মনসিংহ সিলেট খুলনা এ সকল বিভাগে অঞ্চলে সার্ভিস এই সেবাটি ব্যবহার করে সিমের মালিকানা পরিবর্তন করতে পারেন।

সার্ভিস রিকুয়েস্ট পাঠাতে এই ঠিকানায় মেইল করুন অথবা *১২১*৫# এই কোডটি ডায়াল করুন। সিম রিপ্লেসমেন্ট চার্জের সাথে Doorstep service এর জন্য ৬০ টাকা সার্ভিস চার্জ প্রযোজ্য হবে।

রবি সিমের মালিকানা পরিবর্তন

রবি সিমের মালিকানা পরিবর্তন করার জন্য পূর্বের রেজিস্ট্রিকৃত ব্যক্তির ও নতুন মালিক দুজনকে উপস্থিত থেকে নিকটস্থ রবি সেবা সেন্টারে যোগাযোগ করতে হবে তবে মনে রাখবেন রবি কাস্টমার সার্ভিস সেন্টারে আপনাকে অবশ্যই জাতীয় পরিচয় পত্রের অরিজিনাল ও ফটোকপি সঙ্গে নিয়ে যেতে হবে পাশাপাশি পাসপোর্ট সাইজের 2 কপি ছবি।

আপনার নিকটস্থ রবি রিটেইল পয়েন্ট খুঁজে পেতে অনুগ্রহ করে *১৬০০*২# ডায়াল করুন। এছাড়াও রবি সেবা কেন্দ্র এর ঠিকানা জানতে দয়া করে করে *১২৩*৮*৪# ডায়াল করুন।

যদি রবি সিমের মালিক মৃত্যুবরণ করেন তবে তার মালিকানা পরিবর্তনের ক্ষেত্রে আপনাকে বেশ কিছু কাগজপত্র সঙ্গে নিয়ে যেতে হবে।

১. মৃত ব্যক্তির মৃত্যুর সনদ।
২. উত্তরাধিকারী সনদ এবং অনাপত্তি সাক্ষর।
৩. মৃত ব্যক্তি এবং যার নামে সিম টি রি-রেজিস্ট্রেশন হবে উভয় ব্যক্তির আইডি এর ফটোকপি।
৪. নতুন রেজিস্ট্রেশন সংক্রান্ত নথি।

বাংলালিংক সিমের মালিকানা পরিবর্তন

বাংলালিংক গ্রাহকদের জন্য সুখবর কেননা আপনারা এখন নিজেদের জাতীয় পরিচয় পত্র ব্যবহার করে সিমের মালিকানা পরিবর্তন করতে পারবেন। আপনার মোবাইলে ব্যবহৃত সিম টি যদি আপনার পিতা মাতা অথবা অন্য কারো আত্মীয়-স্বজনের জাতীয় পরিচয় পত্র দিয়ে নিবন্ধিত থাকে তাহলে আপনি এখন তা পরিবর্তন করার সুযোগ পাচ্ছেন।

সিমের মালিকানা পরিবর্তন করার ক্ষেত্রে আপনাকে নিকটস্থ বাঙালি কাস্টমার কেয়ার সেন্টারে যোগাযোগ করতে হবে। তবে মনে রাখবেন কাস্টমার কেয়ার সার্ভিস পুরাতন রেজিস্টার কৃত ব্যক্তি এবং নতুন মালিককে দুজনকে উপস্থিত থাকতে হবে এবং জাতীয় পরিচয় পত্র পাসপোর্ট সাইজের ছবির সঙ্গে নিয়ে যেতে হবে। বাংলালিংক সিমের মালিকানা পরিবর্তন করার ক্ষেত্রে কোন ধরনের টাকা চার্জ হিসেবে নেওয়া হয়না তবে অনেক কাস্টমার সার্ভিস সেন্টার থেকে মালিকানা পরিবর্তন করার ক্ষেত্রে 50 টাকা করে নেওয়া হয়ে থাকে।

টেলিটক সিমের মালিকানা পরিবর্তন

টেলিটক হচ্ছে দেশের একমাত্র সরকারি মোবাইল অপারেটর অনেক ব্যবহারকারীই টেলিটক মোবাইল অপারেটর দীর্ঘদিন যাবত ব্যবহার করে আসছেন। আপনি কোন কারণে যদি টেলিটক সিমের মালিকানা পরিবর্তন করতে চান তাহলে আপনাকে বিশেষ নিয়ম অনুসরণ করতে হবে।

টেলিটক সিমের মালিকানা পরিবর্তনের জন্য সিমটি নিয়ে দুজনকে চলে আসতে হবে যেকোনো টেলিটক কাস্টমার কেয়ার সেন্টারে। অর্থাৎ আগে যার নামে চাচ্ছেন সেই ব্যক্তি কে সঙ্গে নিয়ে যেতে হবে। যদি কোনো কারণে পূর্বের মালিক কাস্টমার সার্ভিস সেন্টারে যেতে না পারে এক্ষেত্রে আপনি উক্ত ব্যক্তির জাতীয় পরিচয় পত্র ও ছবি সঙ্গে আনতে পারেন।

স্কিটো সিমের মালিকানা পরিবর্তন

সময়ের সবচেয়ে জনপ্রিয় শিব হচ্ছে গ্রামীনফোন কোম্পানির একটি শাখা মাত্র। ইন্টারনেট ও অন্যান্য সেবা সুলভ মূল্যে দেওয়ার কারণে দিন দিন এ ব্যবহারকারীর সংখ্যা বেড়ে চলেছে আপনার বয়স যদি 18 বছরের কম হয়ে থাকে এবং জাতীয় পরিচয় পত্র হাতে না পেয়ে থাকেন এ অবস্থায় আপনি অবশ্যই সিম ব্যবহার করছেন যা অন্যের দ্বারা নিবন্ধিত।

কিন্তু বর্তমানে আপনার জাতীয় পরিচয় পত্র দাখিল হয়ে গিয়েছে এবং আপনি জাতীয় পরিচয়পত্রের নম্বর হাতে পেয়েছেন। এই অবস্থায় আপনি অবশ্যই নিজের নামে সিমের মালিকানা করতে চাইবেন। স্কিটো সিম ব্যবহারকারীদের জন্য ভালো খবর হলো এই যে আপনি চাইলে ঘরে বসে থেকে স্কিটো সিমের মালিকানা পরিবর্তন করতে পারবেন চলুন জেনে নেয়া যাক কিভাবে স্কিটো সিমের মালিকানা পরিবর্তন করতে হয়।

সিমের মালিকানা পরিবর্তন করার ক্ষেত্রে আপনাকে পূর্বের মালিক ও নতুন মালিককে নিকটস্থ গ্রামীণফোন কাস্টমার কেয়ারে যোগাযোগ করতে হবে। সঙ্গে জাতীয় পরিচয়পত্র ও পাসপোর্ট সাইজের ছবি বহন করতে হবে। কেননা পূর্বের মালিককে ফিঙ্গারপ্রিন্ট প্রদানের মাধ্যমে আপনাকে নতুন মালিকানা দেয়া হবে স্কিটো সিমের মালিকানা পরিবর্তন করার ক্ষেত্রে কোনো ধরনের সার্ভিস গ্রহণ করা হয় না।