ডিজিটাল মার্কেটিং শিখে আয় ২০২২ ডিজিটাল মার্কেটিং থেকে কিভাবে আয় করা যায়

বর্তমানে ডিজিটাল মার্কেটিং বেশ কয়েকটি বিষয় যা হয়ত আপনি বিভিন্ন সোশ্যাল মিডিয়া বা ব্লগ পোষ্ট শুনে থাকবেন। এখন আপনাদের মনে প্রশ্ন জাগতে পারে এই ডিজিটাল মার্কেটিং কি এবং এর সুবিধা সমূহ কি কি তা ছাড়া কিভাবে ডিজিটাল মার্কেটিং করে টাকা ইনকাম করা যায় তা জানার প্রতি মানুষের আগ্রহের শেষ নেই।

আজকে আমরা আপনাদের সামনে উপস্থাপন করতে চলেছে ডিজিটাল মার্কেটিং সম্পর্কিত বিস্তারিত তথ্য যেগুলো পাঠ করে আপনি এই কোর্স সম্পর্কে বিস্তারিত জানতে পারবেন পাশাপাশি এই কোডগুলো থেকে কিভাবে ইনকাম করা সম্ভব তা নিয়ে গুরুত্বপূর্ণ কিছু তথ্য দেওয়া হয়েছে।

ডিজিটাল মার্কেটিং কি?

ইন্টারনেটে বা যে কোনো ধরনের সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমসহ বিভিন্ন ওয়েবসাইটে যোগাযোগের মাধ্যমে ব্যবহার করে কোন প্রতিষ্ঠান বা ব্র্যান্ডের প্রচার চালানো কে বলা হয় ডিজিটাল মার্কেটিং বা অনলাইন মার্কেটিং। এমন একটি ব্যবস্থা যার মধ্যে ইমেইল সোসিয়াল মিডিয়া ওয়েবভিত্তিক বিজ্ঞাপনের পাশাপাশি এসএমএস অডিও মার্কেটিং চ্যানেল ইত্যাদি অন্তর্ভুক্ত করা হয় অর্থাৎ যে মারকেটিং ক্যাম্পেইনে ডিজিটাল প্রযুক্তি ব্যবহার করে প্রচারণা চালায় বা কোন পণ্যের বিজ্ঞাপন দেয়া হয় তাকে ডিজিটাল মার্কেটিং বলা হয়।

Screenshot-2022-02-07-at-11-45-25-AM

ডিজিটাল মার্কেটিং এর সুবিধা

অনলাইন মার্কেটপ্লেসে খুব সহজে বিশাল অডিয়েন্সের কাছে পৌছানো যায় বলে ডিজিটাল মার্কেটিং এর অনেক জনপ্রিয়তা রয়েছে এছাড়াও ডিজিটাল মার্কেটিং এর আরো অনেক সুবিধা রয়েছে যা আমরা নিচের অংশে উল্লেখ করেছি।

  • বিজ্ঞাপন যখন গ্লোবালি টার্গেট করে অনলাইনে পোস্ট করা হয় তখন বিশ্বের সকল প্রান্তের ইন্টারনেট ব্যবহারকারীদের কাছে সেই বিজ্ঞাপনটি পৌঁছে যায় কোন ব্যবসাকে বিশ্বব্যাপী ছড়িয়ে দেওয়ার জন্য এটি সর্বোত্তম মাধ্যম।
  • ডিজিটাল মার্কেটিং এর মাধ্যমে গ্রাহকদের কাছে পৌঁছে যায় যেকোনো ধরনের তথ্য ও পণ্য খুব কম খরচে সাধারণত কোন টিভি নিউজ পেপার গুলো কোন বিজ্ঞাপন প্রচারের জন্য মোটা অঙ্কের টাকা চেয়ে বসে এই অবস্থায় আপনি ডিজিটাল মার্কেটিং এর মাধ্যমে স্বল্প খরচে বিশ্বব্যাপী আপনার পণ্যের বিজ্ঞাপন ছড়িয়ে দিতে পারবেন।
  • মার্কেটিং এর সবচেয়ে বড় একটি সুবিধা হলো এর থেকে প্রাপ্ত ফলাফল ব্যবহার করে পরবর্তী পদক্ষেপ ঠিক করা যায় অর্থাৎ নন ডিজিটাল মাধ্যমে ফলাফল পরিমাপ করে বুঝেশুনে আপনার নতুন একটি সিদ্ধান্ত গ্রহন করতে পারবেন অর্থাৎ আপনার কোন পণ্য যদি গ্রাহকদের মাঝে পৌঁছানোর সত্ত্বেও সফল না হয় তাহলে আপনি এই পণ্যটি সম্পর্কে একটি ধারণা পাবেন। প্রতিদিন ব্যবহার করে কাস্টমারের পছন্দ অ্যাক্টিভিটি ইত্যাদি জানা সম্ভব আবার এই ডাটা পরবর্তী ক্যাম্পেইনের জন্য ব্যবহার করে রেট বাড়ানোর সুযোগ রয়েছে অর্থাৎ মার্কেটিং থেকে প্রাপ্ত তথ্য নির্ভরযোগ্য কাজে লাগানো সম্ভব।
  • ডিজিটাল মার্কেটিং এর ক্ষেত্রে আপনি সরাসরি কাস্টমারের সাথে যোগাযোগ করতে পারবেন সোশ্যাল মিডিয়া ক্যাম্পেইনের ক্ষেত্রে অডিয়েন্সের লাইক কমেন্ট শেয়ার ইত্যাদি বিবেচনা করে আপনার প্রোডাক্টের ব্যক্তিগতভাবে কিভাবে গ্রহণ করছে গ্রাহকরা তার সম্পর্কে জানতে পারবেন এভাবে কাস্টমারের সঙ্গে যুক্ত তা আপনার ব্যান্ডের সাথে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখবে।

ডিজিটাল মার্কেটিং ইনকাম

ডিজিটাল মার্কেটিং এর অনেক ধরনের কাজ হয়ে থাকে আপনি যে বিষয়ে দক্ষ সে ধরনের কাজ আপনাকে দেয়া হবে। চলুন জেনে ফেলে ডিজিটাল মার্কেটিং এর পদ্ধতি এবং কোন কাজগুলো করলে আপনি সহজে টাকা ইনকাম করতে পারবেন।

সার্চ ইঞ্জিন অপটিমাইজেশন

সার্চ ইঞ্জিন অপটিমাইজেশন বা এসইও হলো একটি মারকেটিং টুলস একবার ঠিকমতো করতে পারলে নিজ থেকেই এর ফলাফল প্রদান করবে। সাধারণত কোন ওয়েব সাইটের কনটেন্ট সার্চ ইঞ্জিনে করানোর ক্ষেত্রে এসইও করানো হয়।

একটি কোম্পানির ইন্টারনেট এক্সপোজার নির্ভর করে উক্ত ব্র্যান্ডের এসইও এর ওপর পাশাপাশি ব্র্যান্ডের ওয়েবসাইটে থাকা কনটেন্টের কোয়ালিটি ইউজার এনগেজমেন্ট মোবাইল ফ্রেন্ডলিনেস ইত্যাদি বিষয়ের উপর।

সবচেয়ে জনপ্রিয় সার্চ ইঞ্জিন গুগলের ফ্রন্ট পেজে অবস্থান করার জন্য এসইও অত্যন্ত জরুরি তাই অসাধারণ ফুল সম্পর্কে যদি আপনার ভালো দক্ষতা থাকে তাহলে আপনি ডিজিটাল মার্কেটিং করে টাকা ইনকাম করতে পারবেন। কেননা কেননা বিভিন্ন কোম্পানি এসকল এসইও এক্সপার্ট দের তাদের কণ্ঠে নামকরণের ক্ষেত্রে নিয়োগ প্রদান করে।

কনটেন্ট মার্কেটিং

কনটেন্ট মার্কেটিং এসইওর সাথে সম্পৃক্ত। মূলত টার্গেট গ্রাহককে প্রাসঙ্গিক ও মূল্যবান তথ্য প্রদান করে মার্কেটপ্লেসে বিভিন্ন ভাষায় কন্টাক্ট মার্কেটিং করা যায়। তবে কনটেন্ট মার্কেটিং সরাসরি বিজ্ঞাপনের কাজ করে না বরং কাস্টমারকে বিভিন্ন তথ্য দিয়ে প্রোডাক্ট এর দিকে আকর্ষণ করার চেষ্টা করা হয়।

কনটেন্ট মার্কেটিং এর প্রধান উদ্দেশ্য গ্রাহকদের প্রয়োজনীয় তথ্য প্রদান করে কাস্টমার তৈরি করতে সাহায্য করা। ব্লগ ইউটিউব ভিডিও ইত্যাদি হল কন্তেন্ট মারকেটিং এর একটি অংশ।

সোশ্যাল মিডিয়া মার্কেটিং

বিভিন্ন সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ডিজিটাল মার্কেটিং এর বিষয়টিকে সোসিয়াল মিডিয়া মার্কেটিং হিসেবে পরিচিত এ ক্ষেত্রে সুবিধা হল কাস্টমারের আলোচনা কাজে লাগে মার্কেটিং সম্ভব। সোশ্যাল মিডিয়া মার্কেটিং এর ক্ষেত্রে গ্রাহকরা সরাসরি যুক্ত থাকে যার কারণে এটি অধিক কার্যকর বলে বিবেচনা করা হয়।

যারা সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম নিয়ে যথেষ্ট জ্ঞান রাখেন তারা সোশ্যাল মিডিয়া মার্কেটিং করে টাকা ইনকাম করতে পারবেন ধরুন আপনি যদি ফেসবুক বা ইনস্টাগ্রামের একজন এক্সপার্ট হয়ে থাকেন সেক্ষেত্রে বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানকে একাধিক মাধ্যমে তাদের পণ্যের প্রচার করে সেখান থেকে টাকা ইনকাম করতে পারেন।

পে-পার-ক্লিক মার্কেটিং

pay-per-click পিপিসি হল কোন প্লাটফর্মে বিজ্ঞাপন পোস্ট করা এবং প্রতীক ক্লিক এর বিনিময়ে অর্থ প্রদান করা এই মার্কেটিংয়ের ক্ষেত্রে কিছুটা জটিল হলেও ব্র্যান্ডের কাছে বেশ আকর্ষণীয় ডিজিটাল মার্কেটিং এর একটি নতুন। প্রতিটি পিপিসি ক্যাম্পেইন থেকে তার গ্রাহকদের পাওয়ার পাশাপাশি উৎস কনভারসেশন রেটও বিদ্যমান থাকে যা ব্র্যান্ডের কাছে বেশ লাভজনক আপনি যদি পেপারক্লিক মার্কেটিং সম্পর্কে দক্ষ হন তাহলে ফ্রিল্যান্সিং প্রাপ্ত সেবা প্রদান করে সেখান থেকে প্রচুর টাকা আয় করতে পারবেন।

ইমেইল মার্কেটিং

ডিজিটাল মার্কেটিং এর বেশ পুরনো একটি মাধ্যম হলো ইমেইল মার্কেটিং ইমেইলের মাধ্যমে প্রমোশনাল মেসেজ পাঠানো কে বলা হয় ইমেইল মার্কেটিং। এক্ষেত্রে প্রথমে পটেনশিয়াল অডিয়েন্সের মা কাছে ইমেইল সংগ্রহ করা হয় এবং উক্ত ইমেল সমূহ কে কাজে লাগিয়ে প্রমোশন চালানো হয় অর্থাৎ মার্কেটিং করার ক্ষেত্রে কোম্পানির প্রচারের স্বার্থে বিভিন্ন ধরনের ঐসকল ইমেইল একাউন্টে প্রেরণ করা হয়।

যে কোন ব্যবসায় মার্কেটিংয়ের ক্ষেত্রে প্রথম প্রকাশ হওয়ায় এ দিজিতাল মারকেটিং ব্যবস্থা কাস্টমারের সাথে সরাসরি যোগাযোগ ইসলাম করার ক্ষেত্রে ইমেইল মার্কেটিং অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে। আপনার যদি ইমেইল মার্কেটিং সম্পর্কে সামান্য ধারণা থাকে তাহলে বিভিন্ন মার্কেটপ্লেসে আপনার দক্ষতা কাজে লেখে ইনকাম করতে পারবেন।