অবিক্রিত থেকে গেলেন সাকিব

চলমান বিপিএলে ফর্মের তুঙ্গে থাকলেও আসন্ন আইপিএলের ১৫তম আসরে জন্য দল পাননি সাকিব আল হাসান। ব্যাঙ্গালোরে অনুষ্ঠিত আইপিএলের প্রথম দিনের নিলামে অলরাউন্ডার ক্যাটাগরিতে ২ কোটি রুপি ভিত্তিমূল্যে সাকিবকে ডাকা হলে আগ্রহ দেখায়নি কোনো দলই।

 

গত আইপিএল মৌসুমটা বেশ বাজেভাবে কাটে সাকিবের। এরপর বিশ্বকাপেও নিজেকে প্রমাণ করতে পারেননি এই অলরাউন্ডার। তবে বিপিএলের অষ্টম আসরে শেষ পাঁচটি ম্যাচেই ম্যান সেরা হয়েছেন তিনি, ব্যাটে-বলেই আছেন ফর্মের তুঙ্গে। তবুও ডাক পেলেন না সাকিব।

 

তবে সাকিবের আসন্ন আইপিএল আসরের দল পাওয়ার সুযোগটা যে একেবারেই শেষ হয়ে গেছে- তাও কিন্তু নয়। কোনো দল যদি আগ্রহ দেখায়, তাহলে রোববার নিলামের শেষ দিনে ডাকা হবে সাকিবের নাম।

 

সাকিব এর আগে ২০১১ থেকে ২০১৭ সাল পর্যন্ত কলকাতা নাইট রাইডার্সের হয়ে খেলেছেন। ২০১৮-২০২০ পর্যন্ত খেলেছেন সানরাইজার্স হায়দরাবাদের হয়ে। তিন বছর পর সর্বশেষ ২০২১ মৌসুমে কলকাতা নাইট রাইডার্সেই ফেরেন বাঁ-হাতি এই অলরাউন্ডার। তবে ব্যাটে-বলে করতে পারেননি আশানুরুপ পারফর্ম। আর সে কারণেই হয়তো আগ্রহ হারিয়েছে ফ্রাঞ্চাইজিগুলো।

 

এদিকে, এদিন নিলাম শুরু হতেই সবাইকে চমকে দিয়েছেন দিল্লির ব্যাটার শ্রেয়াস আইয়ার। শ্রেয়াসের জন্য বেস প্রাইস ২ কোটি টাকায় লড়াই শুরু করে আরসিবি ও দিল্লি। লক্ষ্ণৌও যোগ দেয় সে লড়াইয়ে। পরে আগ্রাহ দেখায় কেকেআরও। শাহরুখদের লড়াই চলে দিল্লির সঙ্গে। শ্রেয়াসকে ফেরাতে মরিয়া ছিল দিল্লি। ১০ কোটি টাকা দর হাঁকে গুজরাট টাইটানস। তবে শেষমেশ ১২ কোটি ২৫ লাখ টাকায় শ্রেয়াসকে দলে ভেড়ায় কলকাতা।

 

এখন তাই প্রশ্ন উঠছে- শ্রেয়াসই কি হতে চলেছেন কলকাতার পরবর্তী ক্যাপ্টেন? জবাবটা এখনই জানা না গেলেও জানা যাবে অপেক্ষার পরই। এদিকে, নিলামের আগে আন্দ্রে রাসেল (১২ কোটি), ভেঙ্কটেশ আইয়ার (৮ কোটি), বরুণ চক্রবর্তী (৮ কোটি) ও সুনীল নারাইন (৬ কোটি)- এই চার ক্রিকেটারকে ধরে রাখে কলকাতা নাইট রাইডার্স (কেকেআর)।