শ্রীলঙ্কার মতো পরিস্থিতি হতে পারে আরও যেসব দেশের

অতিরিক্ত বৈদেশিক ঋণ এবং অপরিকল্পিত উন্নয়ন একটা দেশকে কতটা ভয়াবহ পর্যায়ে নিতে যেতে পারে। তার জ্বলন্ত উদাহরণ শ্রীলঙ্কা। দেশটিতে এখন মানবিক সংকট চরমে। বিশ্বের বিভিন্ন দেশই অর্থনৈতিক দিক দিয়ে শ্রীলঙ্কার দিকে এগিয়ে যাচ্ছে বলে এনডিটিভির এক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে।  

 

এতে বলা হয়, শ্রীলঙ্কা, লেবানন, রাশিয়া, সুরিনাম এবং জিম্বাবুয়ে অর্থনৈতিক অবস্থার দিক দিয়ে খুবই খারাপ পর্যায়ে রয়েছে। বেলারুশের অবস্থাও প্রায় সন্নিকটে। যে কোনো সময়ই অর্থনীতি ধসে পড়তে পারে। এর কারণ হিসেবে দায়ী করা হচ্ছে ক্রমবর্ধমান ঋণের বোঝা এবং মুদ্রাস্ফীতি। 

 

অর্থনৈতিক দিক দিয়ে বিশ্বে যেসব দেশ ঝুঁকির মধ্যে রয়েছে-

আর্জেন্টিনা

আর্জেন্টিনাতেও ক্রমাগতভাবে কমছে রিজার্ভের পরিমাণ। কমে গেছে সেদেশের মুদ্রার মানও। শুধু তাই নয় ২০২০ সালে পর থেকে আর্জেন্টিনার অর্থনৈতিক অবস্থা ক্রমাগত অবনতির দিকে এগিয়ে যাচ্ছে। 

 

ইউক্রেন

ইউক্রেনে রাশিয়া হামলা চালানোর পর দেশটির অর্থনৈতিক অবস্থা ভেঙে পড়েছে। এই মুহূর্তে দেশটির অর্থনীতি পুনরুদ্ধারে ২০ মিলিয়ন ডলার প্রয়োজন। দেশটির অর্থনৈতিক অবস্থা নিয়ে আশঙ্কার কথা জানিয়েছেন শীর্ষ বিনিয়োগকারী দুই ব্যক্তি মরগ্যান স্টানলে এবং আমুন্দি ওয়ার্ন। 

তিউনেশিয়া 

তিউনেশিয়ার অর্থনৈতিক অবস্থা চরম সংকটের মধ্যে রয়েছে। দেশটির আন্তর্জাতিক মুদ্রা তহবিলের কাছ থেকে ঋণ নেওয়া চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে। 

 

পাকিস্তান

চলতি সপ্তাহে আন্তর্জাতিক মুদ্রা তহবিল (আইএমএফ)‘র সাথে এক গুরুত্বপূর্ণ চুক্তি স্বাক্ষর করেছে পাকিস্তান। তবে পাকিস্তানের রিজার্ভ কমতে কমতে দাঁড়িয়েছে ৯.৮ বিলিয়ন ডলারে। তারল্য সংকটের কারণে জ্বালানি আমদানি করতে পারছে না পাকিস্তান। দেশটির নতুন সরকার সংকট উত্তোরণের পথ খুঁজছেন। কিন্তু তেমন কোনো উপায় খুঁজে পাচ্ছেন না।  

 

এ তালিকায় আরও রয়েছে, ঘানা, মিশর, কেনিয়া, ইউথোপিয়া, ইআই স্লাভাদোর, বেলারুশ, ইকুয়েডর এবং নাইজেরিয়া।