টুথব্রাশ থেকে উত্তম নিমের দাঁতন

নিম এমন একটি গাছ, যার প্রতিটি অংশই কোনও না কোনও রোগের চিকিৎসায় কার্যকর। এ গাছের ডাল, পাতা, ছাল, বীজ – সবই খুব উপকারি। বিভিন্ন প্রসাধনী তৈরিতেও নিম ব্যবহৃত হয়। ঔষধি গুণে পরিপূর্ণ নিম সাধারণ জীবনে প্রচুর ব্যবহৃত হয়।

 

নিম রুপচর্চায় যেমন কার্যকরী, তেমনই শরীরের নানা সমস্যাও নিমেষেই সারিয়ে দিতে পারে। দাঁত ও মাড়ির সুস্থতায় নিমের ডাল ব্যবহার করার প্রচলন রয়েছে সেই প্রাচীনকাল থেকেই। নিম ডাল দিয়ে নিয়মিত দাঁত মাজলে দাঁত ও মাড়ি মজবুত হয়, রক্ষা মেলে দাঁতের বিভিন্ন রোগ থেকেও।

 

ব্যাকটেরিয়া থেকে রক্ষা করে 

নিম ডাল মুখের জীবাণুর বিরুদ্ধে লড়াই করতে কার্যকর। এটি ব্যাকটেরিয়া দূর করতে সাহায্য করে। নিমের

দাঁতনের অ্যান্টিব্যাকটেরিয়াল এবং অ্যান্টিমাইক্রোবিয়াল বৈশিষ্ট্য দাঁত ও মাড়ি ভালো রাখতে দারুণ কার্যকর। এছাড়াও, নিম ডাল প্লাক, টার্টার এবং আলসার রোধ করতে পারে। তবে আপনি যদি প্রতিদিন ব্রাশ না করেন, তবে আপনার দাঁতের এনামেল প্লাকে ভরে যাবে।

 

ক্ষারীয় স্তর বজায় রাখে 

নিম দাঁতন লালার ক্ষারীয় মাত্রা বজায় রাখে, দাঁতে ক্যাভিটি সৃষ্টিকারী ব্যাকটেরিয়ার বিরুদ্ধে লড়াই করে।

 

মাড়ি শক্তিশালী করে 

নিম ডাল দাঁতের ব্যথা কমায়, দাঁত পরিষ্কার করে, মাড়ির ফোলাভাব কমাতে পারে, মাড়ি শক্তিশালী করে, মুখের মধ্যেকার জীবাণুও দূর করে। এছাড়া, অনেকেই মাড়ি দিয়ে রক্ত পড়া, মুখে দুর্গন্ধ বা পাইরিয়ার সমস্যায় ভোগেন। নিমের দাঁতন মুখের দুর্গন্ধ দূর করতে, দাঁতের ফাঁকে জীবাণু সংক্রমণ রোধ করতে, দাঁতের গোড়া মজবুত করতে ও মাড়ি থেকে রক্তপাত হওয়া কমাতে বেশ কার্যকর।

 

দাঁত সাদা করতে 

নিম দাঁতন দাঁত সাদা করতে খুব সহায়ক। এটি দাঁতের হলুদ বর্ণ দূর করে দাঁতকে ধবধবে সাদা করে তোলে। এছাড়া, নিমের ডাল মাউথ ফ্রেশনার হিসেবেও কাজ করে।