জাপানকে হারাতে ঘাম ঝরল ব্রাজিলের

দুই দলের মধ্যে শক্তিমত্তার বড় পার্থক্য। ব্রাজিল ফিফা র্যাংকিংয়ে এক নম্বর, জাপান ২৩। মাঠের খেলায়ও প্রভাব বিস্তার করলো ব্রাজিল। তবে গোল পেতে রীতিমত ঘাম ঝরলো পাঁচবারের বিশ্বচ্যাম্পিয়নদের। ফিফা প্রীতি ম্যাচে আজ (সোমবার) জাপানের মাঠে ১-০ গোলের কষ্টার্জিত জয় নিয়ে মাঠ ছেড়েছে তিতের দল। নেইমার একমাত্র গোলটি করেন পেনাল্টি থেকে। এ নিয়ে টানা ১৩ ম্যাচ অপরাজিত রইলো সেলেসাওরা।

 

ম্যাচের শুরু থেকেই জাপানকে চাপে রাখে ব্রাজিল। কিন্তু প্রথমার্ধে ১৫ শট নিয়েও (৩টি লক্ষ্যে) গোলের দেখা পায়নি পাঁচবারের বিশ্বচ্যাম্পিয়নরা। জাপান মাত্র দুটি শট নিতে পেরেছে, লক্ষ্যে ছিল না একটিও। কিন্তু ব্রাজিলকে আটকে রাখতে পেরেছে তারা। প্রথমার্ধের শেষদিকে বেশ কয়েকটি গোছানো আক্রমণ করে ব্রাজিল। ৩৯ মিনিটে বক্সের বাইরে থেকে নেওয়া রাফিনহার বাঁ পায়ের শট ক্লোজ ছিল। ৪২ মিনিটে নেইমারের বুলেট গতির শট ঝাঁপিয়ে পড়ে বাইরে বের করে দেন জাপান গোলরক্ষক শুইচি গোন্ডা।

 

দ্বিতীয়ার্ধেও আক্রমণের ধারা ধরে রাখে ব্রাজিল। ৫৭ মিনিটে দানি আলভেজের হেডেড পাস থেকে রাফিনহার শট পোস্টের ডানদিক ঘেঁষে চলে যায়। এরপর নেইমারের বেশ কয়েকটি চেষ্টা আটকে দেয় জাপান। ৭৫ মিনিটের মাথায় রিচার্লিসনকে বিপজ্জনক জায়গায় ফেলে দেন ওয়াতারো এন্দো। পেনাল্টির বাঁশি বাজান রেফারি। ডান পায়ের শটে পোস্টের বাঁদিক দিয়ে বল সহজেই জালে জড়িয়ে দেন নেইমার। জাতীয় দলের জার্সিতে এটি তার ৭৪তম গোল। পেলের রেকর্ড ছুঁতে আর দরকার মাত্র ৩টি।

নেইমারের গোলের পরের সময়টায় ব্রাজিলকে ভালোভাবেই আটকে রাখে জাপান। পাঁচবারের বিশ্বচ্যাম্পিয়নরাও বলার মতো আর সুযোগ তৈরি করতে পারেনি। পুরো ম্যাচে মোট ২১টি শট নিয়েছে ব্রাজিল, যার মধ্যে ৫টি ছিল লক্ষ্যে। অন্যদিকে জাপান মাত্র ৭টি শট নিতে পারে, একটিও লক্ষ্যে রাখতে পারেনি। তারপরও শক্তিমত্তা বিবেচনায় ব্রাজিলের এই জয় বেশ অস্বস্তিরই। নেইমার-রিচার্লিসনরা যে সেরা ছন্দে ছিলেন না!