কেন দুধ পান করবেন

দুধ পুষ্টিগুণে ভরপুর। শিশু, প্রাপ্তবয়স্ক ও বৃদ্ধ–সবারই প্রতিদিন এক গ্লাস দুধ পান করা উচিত। দুধ ভিটামিন ডি ও ক্যালসিয়ামের উৎস। দুধে আছে প্রোটিন, কার্বোহাইড্রেট, চর্বি, ওমেগা থ্রি, ওমেগা সিক্সসহ অনেক গুরুত্বপূর্ণ উপাদান। দুধকে বলা হয় সুপার ফুড।

 

এতে আছে প্রয়োজনীয় ভিটামিন ও খনিজ পদার্থ, যা শরীরের জন্য জরুরি। এতে প্রচুর ভিটামিন বি-১২ আছে, যা মস্তিষ্কের জন্য প্রয়োজন। দুধ শরীরকে কর্মক্ষম রাখতে সাহায্য করে। এ ছাড়া দেহের টিস্যু ও কোষ মেরামতের জন্য দারুণ উপকারী।

 

কেন দুধ পান করবেন

আমাদের দেশে গরু ও ছাগলের দুধ সহজলভ্য। শিশুরা নির্দিষ্ট সময় পর্যন্ত মায়ের বুকের দুধ পান করতে পারে। মায়ের বুকের দুধের পর নিয়মিত গরু-ছাগলের দুধ পান করা উচিত। পাশাপাশি প্রাপ্তবয়স্ক ও বৃদ্ধরাও গরু-ছাগলের দুধ পান করলে উপকার পাবেন।

 

গরুর দুধের উপকারিতা

১. কোলেস্টেরল নিয়ন্ত্রণে রাখে।

২. ঘুম ভালো হয়।

৩. হাড় মজবুত করে।

৪. সারাদিনের শক্তি অর্জিত হয়।

৫. ত্বক সুন্দর করে।

 

ছাগলের দুধের উপকারিতা

১. হার্ট ভালো রাখে।

২. পুষ্টিগুণ মায়ের বুকের দুধের কাছাকাছি।

৩. এলার্জি প্রবণতা কম।

৪. উচ্চ ক্যালসিয়াম সমৃদ্ধ।

৫. ত্বকের যত্নে উপকারী।

৬. ল্যাকটোজ অসহিষ্ণু।

 

৭. হজম করা যায় সহজেই।

৮. এলার্জি নিয়ন্ত্রণ করে।

৯. হাঁড়ের গঠনকে শক্তিশালী করে।

১০. কোলেস্টেরল কম।

১১. বাড়ন্ত শিশুর জন্য উপকারী।