লক্ষীপুরে বর্ণাঢ্য স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী উৎসব

স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী উদযাপন উপলক্ষে লক্ষীপুরে ৩৩ বীর মুক্তিযোদ্ধাকে সংবর্ধনা ও ফুলেল শুভেচ্ছা জানানো হয় ক্রেস্ট ও সনদ দেয়ার মাধ্যমে।

বৃহস্পতিবার (০৩ মার্চ) সন্ধ্যায় শহরের হ্যাপী সিনেমাহল প্রাঙ্গণে লক্ষ্মীপুর পৌরসভার নবনির্বাচিত মেয়র মোজাম্মেল হায়দার মাসুম ভূইয়ার আয়োজনে এবং সভাপতিত্বে এই সংবর্ধনা অনুষ্ঠিত হয়।

প্রতিবেদকের সাথে আলাপচারিতায় মেয়র জানান “বঙ্গবন্ধুর আদর্শ এবং দেশনেত্রী মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্ব অনুকরণ করে আমি লক্ষীপুর পৌরসভাকে উন্নয়ন এর রোল মডেল হিসেবে দেশ, জাতি এবং বিশ্বের কাছে উপস্থাপন করতে চাই। তারই ধারাবাহিকতায় আজকের এই জমকালো আয়োজন যা লক্ষীপুরবাসী  উপভোগ করলো”

মেয়র মহোদয় আরো জানান “মুক্তিযোদ্ধারা আমাদের অহংকার। আমৃত্যু তাদের সর্বোচ্চ সম্মান প্রদর্শন করা আমদের দায়িত্ব। মুক্তিযোদ্ধারা দেশ মাতৃকার প্রবল টানে সেদিন যুদ্ধে ঝাঁপিয়ে না পড়লে আজ আমরা স্বাধীন দেশের স্বাধীন বাসিন্দা হতে পারতামনা। মুক্তিযোদ্ধারা আমাদের গৌরবোজ্জ্বল ইতিহাস।”

অনুষ্ঠানে সংবর্ধিত মুক্তিযোদ্ধারা হলেন এ.কে.এম শাহজাহান কামাল, শাহাবুদ্দিন ইঞ্জিনিয়ার, মো.শাহ আলম, তোফায়েল আহমেদ, মাহাবুবুল আলম, শামসুল ইসলাম, বশির উদ্দিনসহ ৩৩ জন। সংবর্ধনা পেয়ে মুক্তিযোদ্ধারা সন্তোষ ও উচ্ছ্বাস প্রকাশ করেন।

উক্ত অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসাবে উপস্থিত ছিলেন, লক্ষ্মীপুর সদর-৩ আসনের সংসদ সদস্য এ.কে.এম শাহজাহান কামাল(সাবেক বিমান ও পর্যটন মন্ত্রী)। এছাড়া লক্ষ্মীপুর সরকারি কলেজের সাবেক অধ্যক্ষ প্রফেসর মাইন উদ্দিন পাঠান, জেলা আওয়ামী লীগের সাবেক সভাপতি এম আলাউদ্দিন, এড. রাসেল মাহামুদ মান্না, লক্ষ্মীপুর পৌরসভার সকল কাউন্সিলরবৃন্দ, কর্মকর্তা-কর্মচারী ছাড়াও বিভিন্ন স্তরের কয়েকহাজার দর্শক-শ্রোতা উপস্থিত ছিলেন।

অনুষ্ঠানে বিশেষ আকর্ষণ হিসেবে লেজার প্রদর্শনীর মাধ্যমে মুক্তিযুদ্ধ, বঙ্গবন্ধু ও বাংলাদেশের উন্নয়ন শীর্ষক প্রদর্শনী করা হয় এবং তারকা ও স্থানীয় শিল্পীদের নিয়ে মনোজ্ঞ সাংস্কৃতিক সন্ধ্যা অনুষ্ঠিত হয়। অনুষ্ঠানটি সার্বিক সহযোগিতায় ছিলো বি হ্যাপি এন্টারটেইনমেন্ট।