অনন্তের ‘দিন দ্য ডে’ দেখে প্রশংসা করে যা বলছেন তারকারা

ঈদ মানে নতুন সিনেমা।দর্শক চাহিদার কথা মাথায় রেখে কমবেশি প্রতি ঈদেই মুক্তি পায় সিনেমা।এবার ঈদেও তার ব্যাক্তিক্রম হয়নি। কোরবানির ঈদ উপলক্ষে মুক্তি পেয়েছে তিনটি সিনেমা ‘দিন-দ্য ডে’, ‘পরাণ’ ও ‘সাইকো’।

ঈদের ছুটি শেষ হলেও এখনো ছুটির আমেজ কাটিয়ে উঠতে পারেনি দর্শক। কারণ দর্শকপ্রিয় সিনেমা হয়ে উঠলো ‘দিন দ্য ডে’! অনন্ত জলিল ও বর্ষা অভিনীত এ সিনেমাটি দেখতে দর্শকের বাড়তি চাপ দেখা যাচ্ছে সিনেপ্লেক্সগুলোতে। দর্শকদের চাপ দিনের পর দিন বৃদ্ধি পাওয়ায় ঈদের অন্য ছবির শো কমিয়ে বাড়ানো হয়েছে ‘দিন দ্য ডে’-এর শো।

সাধারণ দর্শকের পাশাপাশি তারকারাও দেখছেন ঈদের সিনেমাগুলো। পাশাপাশি সিনেমাগুলো নিয়ে তাদের ভালোলাগার কথা শেয়ার করছেন নিজেদের ফেসবুকে দেওয়ালে।‘দিন দ্য ডে’ প্রত্যাশা পূরণ করেছে বলে জানিয়েছেন দেশের বড়-বড় তারকা।

কিংবদন্তী চলচ্চিত্র ব্যক্তিত্ব কাজী হায়াৎ: 

কাজী হায়াৎ ‘দিন দ্য ডে’ সিনেমা হলে দেখার পর তাৎক্ষণিক এক প্রতিক্রিয়ায় বলেন,সুন্দর লাগলে দর্শকরা বসে দেখে। ‘দিন দ্য ডে’ সিনেমা দেখে আজ সেটার প্রমাণ পেলাম। আমি একজন দর্শক হিসেবে ২২ বছর পর হলে বসে সিনেমা দেখলাম। এই ছবিটি ১০০ কোটি কি ২০০ কোটি সেটা দেখার বিষয় না। তবে এই সিনেমায় অনেক টাকা খরচ করা হয়েছে। সে খরচটা অহেতুক মনে হয়নি। যেটাকা করচ করা হয়েছে সেটা অযৌক্তিক মনে হয়নি। আমার মনে হয়, এই ধরনের সিনেমা মুক্তি পেলে বাংলা সিনেমার সুদিন ফিরবে। এটি দেখার সময় আমি একটুও বিরক্ত বোধ করিনি। সবচে অশ্চর্যের বিষয় হলো সিনেমা যখন শেষ তখন কিন্তু একটি গান ছিল। সেই গানটি ছিল দুই ভাষার গান। এটি সুন্দর একটি সিনেমা।’

জনপ্রিয় চিত্রনায়ক ওমর সানী:

ওমর সানী বলেন, ‘দিন দ্য ডে’ আপদমস্তক একটি বাণিজ্যিক সিনেমা দেখলাম। বিশ্বে যেসব বাণিজ্যিক ছবি চলে অনন্ত জলিল চেষ্টা করেছে। কতটুকু সফল হতে পেরেছে সেটা দর্শক বিচার করবেন। মধুমিতা সিনেমা হলের মালিক নওশাদ বললেন, ‘দিন দ্য ডে’ হাউসফুল যাচ্ছে। সেটা শুনতে ভালোই লাগছে। বাংলা সিনেমার সুদিন ফিরুক।

‘মাস্টার মেকার’-খ্যাত নির্মাতা মালেক আফসারী:

তিনি তার নিজস্ব ইউটিউব চ্যানেলে এক রিভিউতে বলেন,‘দিন দ্য ডে’ একটি ব্যয়বহুল একটি সিনেমা। দারুণ সব দৃশ্য ছিল। যে দৃশ্যগুলো আমরা ভারতীয় বা ইংলিশ ছবিতে দেখতে পাই। বাংলাদেশের ছবিতে এই প্রথম এমন দৃশ্য এসেছে। ছবির গান-অ্যাকশন দৃশ্য ছিলে দারুণ।

গুণী নাট্য-নির্মাতাঅনিমেষ এইচ:

তিনি বলেন, ‘‘যারা বলিউডের অ্যাকশন সিনেমা দেখতে ভালোবাসেন, তাদের জন্য ‘দিন দ্য ডে’ হতে পারে দারুণ উপভোগ্য। এমন লোকেশন আর ধুন্ধুমার অ্যাকশন এর আগে কোনো বাংলা ছবিতে দেখা যায়নি। আমি যেদিন বসুন্ধরা সিনেপ্লেক্সে সিনেমাটি দেখলাম, সেদিন ছিল উপচেপড়া ভিড়। সব ধরনের সিনেমাই হওয়া উচিত। ঈদের অন্য সিনেমা দেখিনি, কিন্তু ‘দিন দ্য ডে’ আমার ভালো লেগেছে।

জনপ্রিয় নারী নির্মাতা চয়নিকা চৌধুরী :

চয়নিকা চৌধুরী সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে লিখেছেন, ‘অবশেষে দেখে এলাম অনন্ত জলিল ও বর্ষা অভিনীত ‘দিন দ্য ডে’। আমার ব্যক্তিগত অনুভূতি থেকেই লিখছি। দেখলাম এন্টারটেইনিং একটি সিনেমা। অনেক এরেঞ্জমেন্টাল, দারুণ লোকেশনের, সুন্দর গানের একটি সিনেমা। যেকোনো পরিচালকের জন্যে গল্পের প্রয়োজনে এমন লোকেশনে কাজ করা ভাগ্যের ব্যাপার। অনেক দর্শক ছিল। এমন সিনেমাও মানুষ দেখতে চায়। অনেক ব্যয়বহুল সিনেমা। আপনারা চাইলে হলে গিয়ে দেখে আসতে পারেন। আপনারা বাংলা চলচ্চিত্র দেখলে বাংলা সিনেমার জয় হবে। মানুষকে বড় করলে আপনি ঠকবেন না। সবার জন্যে শুভ কামনা।’

অভিনেত্রী আশনা হাবিব ভাবনা:

মুক্তির পরদিন নিসেমা হলে গিয়ে ‘দিন দ্য ডে’ দেখেছেন অভিনেত্রী আশনা হাবিব ভাবনা। এ সময় তিনি বলেন, ‘সিনেমা হলে দর্শকরা অনেক এনজয় করেছে। প্রত্যেকটি দৃশ্যের সঙ্গে দর্শকরা প্রতিক্রিয়া দিচ্ছিল। আমি নিজেও অনেক এনজয় করেছি। এই সিনেমা নিয়ে যেটুকু আশা করেছিলাম, তার চেয়ে বেশি পেয়েছি। আসলে এটা অনেক বিগ বাজেটের ছবি। তাই বলবো, বাণিজ্যিক সিনেমা আসলে এমনই হওয়া উচিত।

উল্লেখ্য, ‘দিন দ্য ডে’ সিনেমায় অনন্ত জলিলকে আন্তর্জাতিক সংস্থার একজন পুলিশ কর্মকর্তার চরিত্রে দেখা গেছে। নানা সন্ত্রাসগোষ্ঠী দমনে অভিযানে অংশ নেন তিনি। সিনেমাটি নির্মাণ করেছেন ইরানি পরিচালক মুর্তজা অতাশ জমজম। বাংলাদেশ ছাড়াও ইরান, তুরস্ক ও আফগানিস্তানে সিনেমাটির শুটিং হয়েছে।