‘দিন দ্য ডে’ দেখতে উপচে পড়া ভিড়,দর্শক বলছে টাকা বৃথা যায়নি

করোনা এবং সমসাময়িক চলচ্চিত্রের বিভিন্ন ইস্যুর কারণে ঢালিউডের সিনেমা নিয়ে দর্শকের আগ্রহ খুব একটা নেই। মাঝে মাঝে এমন সময় আসে যখন মানুষ বাংলা সিনেমা নিয়ে আলোচনা করে। দেখার জন্য অধীর আগ্রহে বসে থাকে। ‘দিন দ্য ডে’ ঠিক তেমন একটি সিনেমা হিসেবে আলোচিত হচ্ছে বেশ কয়েকদিন ধরে।

ঈদুল আজহা উপলক্ষে মুক্তি পেয়েছে অনন্ত জলিল ও বর্ষা অভিনীত বহুল-আলোচিত সিনেমা ‘দিন : দ্য ডে’,। ঈদে মুক্তি প্রাপ্ত সিনেমাগুলোর বাজেট সর্বমোট প্রায় ১০১ কোটি টাকা,যা ঢাকাই সিনেমার ইতিহাসে প্রথম।

এবারের ঈদে সর্বাধিক সিনেমা হলে মুক্তি পেয়েছে অনন্ত জলিলের ‘দিন : দ্য ডে’। বাজেট আর প্রচারণায় এগিয়ে থাকা এই সিনেমা মুক্তি পেয়েছে ১০৭টি সিনেমা হলে।আলোচিত এই সিনেমাটি দেখার জন্য অনেকে দর্শক আগে থেকেই টিকিট কেটে রেখেছেন। আশা করা হচ্ছিল প্রথম শো থেকেই প্রেক্ষাগৃহ কানায় কানায় ভর্তি থাকবে। হলোও তাই। রাজধানীর স্টার সিনেপ্লেক্সে,সনি স্টার সিনেপ্লেক্স (মিরপুর-১) সিনেমা হল প্রায় প্রতিটি শোতে দর্শকদের ভীড়ে মুখরিত হয়ে ওঠে।‘দিন দ্য ডে’ মুক্তির প্রথম দিন থেকে সিনেমা হলে ছিল দর্শক পরিপূর্ণ। যা নিয়ে বিভিন্ন মহলে সমালোচনা সূষ্টি হয়েছে। যেখানে বাংলা সিনেমার দর্শক দিনের পর দিন কমছে, সেখানে সিনেমা হলে এতবেশি সংখ্যক দর্শক দেখে অবাক আমজনতা। ফলে চলচ্চিত্র বিশ্লেষকরাও ধারণা করছেন সামনের দিনগুলোতে ছবিটির দর্শক আরও বাড়বে।

এদিকে দর্শকদের বাড়তি চমক দিতে প্রেক্ষাগৃহে হাজির হচ্ছেন ‘দিন দ্য ডে’ সিনেমার টিম। সিনেমা শুরুর আগে তারা দর্শকদের সামনে দাঁড়িয়ে আগত দর্শকদের ধন্যবাদ জানান। কিছু সময় সেখানে অবস্থান করে তারা বিদায় নেন।

একটি বেসরকারি কোম্পানিতে চাকরি করে জাহিদুল ইসলাম। বন্ধুদের সঙ্গে তিনি ‘দিন দ্য ডে’ দেখতে এসেছেন। সিনেমা মুক্তির তারিখ ঘোষণার পর থেকেই তিনি উন্মুখ হয়ে ছিলেন সিনেমাটি দেখার জন্য। তার কাছে সবমিলিয়ে সিনেমাটি ভালো লেগেছে। তিনি বলেন, ‘আমার কাছে সিনেমাটি বেশ ভালো লেগেছে। এনজয় করেছি সিনেমাটি।যতটুকু বুঝেছি সিনেমার মেকিং ভালো ছিল।

বেসরকারি প্রতিষ্ঠানের এক কর্মকর্তা নাম রাজ্জাক।তিনি তার স্ত্রী, সন্তানকে নিয়ে ‘দিন দ্য ডে’ সিনেমা দেখতে এসেছেন।তিনি বলেন, সিনেমাটি অনলাইন বেশ প্রচারণা চালানো হচ্ছে সেই আগ্রহ থেকে সিনেমাটি দেখার আগ্রহ তৈরি হয়েছে আর ঈদের ছুটিও ছিল হাতে তাই পরিবার নিয়ে চলে আসলাম। উপভোগ করেছি সিনেমাটি  টিকিটের বৃথা যায়নি। এন্টারটেইনিং করেছে সিনেমাটি আমাদের!

জান্নাতুল ফেরদৌস নামে আরেক স্টুডেন্ট বলেন,আমরা তো ফিল্ম ক্রিটিক না। সমালোচনা করতে পারবনা। আমার কাছে খারাপ লাগেনি।

অন্যদিকে সিনেমা দেখতে আসা অন্য দর্শকরা মনে করছেন ‘দিন দ্য ডে’  মতো আরও সিনেমা নিয়মিত নির্মাণ হওয়া উচিত। তাতে করে হলবিমুখ মানুষ আবার হলমুখী হবে।

‘দিন দ্য ডে’ সিনেমাটি নির্মাণ করেছেন ইরানি পরিচালক মুর্তজা অতাশ জমজম। বাংলাদেশ ছাড়াও ইরান, তুরস্ক ও আফগানিস্তানে সিনেমাটির শুটিং হয়েছে। ইরানের মুর্তজা অতাশ জমজম এবং বাংলাদেশের প্রযোজক অনন্ত জলিলের ‘এজে’ ব্যানারে নির্মিত হয়েছে সিনেমাটি। অনন্ত জলিল, বর্ষা ছাড়া আরও অভিনয় করেছেন ইরান ও লেবাননের অভিনেতারা। সিনেমায় অনন্ত জলিলকে আন্তর্জাতিক সংস্থার একজন পুলিশ কর্মকর্তার চরিত্রে দেখা যাবে। নানা সন্ত্রাসগোষ্ঠী দমনে অভিযানে অংশ নেবেন তিনি।