কেমন হবে ঈদের সাজ

ঈদে ছোট-বড় সবাই নিজেকে সাজান। দুয়ারে কড়া নাড়ছে ঈদ। ঈদের দিন কীভাবে সাজবেন চলছে নিশ্চয় সেই প্রস্তুতি। গরমের এই সময়ে যতটা সম্ভব পরিপাটি ও স্নিগ্ধ সাজগোজেই ভালো লাগবে। ঈদের দিন নিজেকে পরিপাটি দেখানোর জন্য চুলের কাট, মেনিকিওর-পেডিকিওর, ফেসিয়াল এসব আজই সেরে নিতে পারেন।

 

ঈদের দিন সাধারণত ঘরে বসেই একা একা সাজতে হয়। পরিকল্পনা আর প্রস্তুতি থাকলে ঘরেই বসেই সুন্দর করে সাজগোজ করা সম্ভব। অতিরিক্ত গরমের পাশাপাশি বৃষ্টির সময় ঈদ হওয়ায় সাজগোজ যতটা সম্ভব পরিপাটি আর হালকা থাকলেই ভালো।

 

দিনের বেলার সাজ

এই গরমে ত্বকের আর্দ্র ভাব কমে যেতে পারে। এজন্য ঈদের দিন সকাল থেকেই পানি ও অন্যান্য তরল খাবার বেশি করে খেতে হবে। যেহেতু গরম, ঈদের দিন সকাল ও দুপুরের পোশাক হালকা রঙের হলেই ভালো। সাথে হালকা মেকআপ। এই সময় লিকুইড ফাউন্ডেশন ভালো হবে। তার উপর হালকা করে পাউডার আর হালকা শেডের ব্লাশ-অনেই সাজ কমপ্লিট হয়ে যাবে।

 

সাজে পরিপাটি ভাব বজায় রাখতে হালকা করে আইব্রো একে নেয়া যেতে পারে। চোখের পাতায় চিকন করে আইলাইনার ও কাজল লাগালে ভালো লাগবে। আইল্যাশ ব্যবহার করলে চোখের সাজ ফুটবে। চুল স্ট্রেইট হলে সামনে একটু বেণী করে আটকে দেয়া যেতে পারে। আবার চুল খোলা রাখলেও ভালো দেখাবে। তবে বড় চুল খোঁপা করে ফুল গুঁজে দিলে গরমের ঈদে স্নিগ্ধতা এনে দেবে। আবার কার্ল করে ছেড়ে রাখলেও সুন্দর লাগবে।

 

তবে রাতের পোশাক ভারি হতে পারে। ঈদের দিন রাতে সাধারণত দাওয়াতে যেতে হয়। এজন্য একটু ভারি সাজে ভালো লাগে। তবে খেয়াল রাখতে হবে, শাড়ি জমকালো হলে হালকা মেকআপ দিতে হবে। আর মেকআপ ভারি হলে হালকা কাজের শাড়ি মানানসই। শাড়ির সাথে মিলিয়ে গহনা নির্বাচন করতে হবে। চুল আয়রন করে খোলা রাখা যেতে পারে।

 

ঈদই বছরের সেই সময় যখন ছেলেরা একটু নিজেদের যত্ন নেয়। ছেলেদের ঈদের সাজগোজের প্রস্তুতিতে চুল বা দাড়ি কাটা বা ট্রিম করা ও মেনিকিওর-পেডিকিওর করা খুব জরুরি। ঈদের দিন ছেলেরা হালকা রঙের পাঞ্জাবী পরলে ভালো হবে। তবে পাঞ্জাবী পরুন কি ঈদের বিকেলে টি-শার্ট, পারফিউম দিতে ভুললে চলবে না একদমই। জেল দিয়ে চুলটা সেট করে নিলে গরমের ঈদে বেশ পরিপাটি দেখাবে।

 

অন্যান্য অনুষ্ঠানের সাথে জমকালো সাজ মানালেও ঈদ তেমনটা নয়। ঈদে হালকা সাজেই ভালো লাগে। ন্যাচারাল লুকেই ভালো লাগে। ভারি মেকআপ ঈদে ভালো লাগে না। এখন গরম যেহেতু বেশি, তাই ভারি মেকআপ স্বস্তিদায়ক হবে না। এই সময় মেকআপ ব্যবহার না করে সানব্লকের সাথে ফাউন্ডেশন মেশানো লোশন বা ক্রিম (বাজারে পাওয়া যায়) ব্যবহার করা যেতে পারে।

 

সকালে হালকা রঙের পোশাকই মানাবে ভালো। সাথে হালকা সাজ। শাড়ি পরলে কপালে ছোট টিপ, হালকা চোখের সাজ আর হালকা রঙের লিপস্টিকে ভালো লাগবে। সাজ-পোশাক মানুষের ব্যক্তিত্ব ও রুচির পরিচয় দেয়। ঈদের সাজ-পোশাক পছন্দ করার ক্ষেত্রেও এই ব্যাপারটি মনে রাখা দরকার। ছিমছাম আর পরিপাটি সাজে ঈদ হয়ে উঠুক প্রাণবন্ত।