ঈদের আগে মসলার বাজারে স্বস্তি

টানা কয়েকদিনের দাম বৃদ্ধির প্রবণতার মাঝে ঈদের আগে কিছুটা স্বস্তির খবর মিলছে মসলার বাজারে। সরবরাহ বাড়তে শুরু করায় প্রায় সবধরনের মসলার দাম কিছুটা পড়তির দিকে। একদিনের ব্যবধানে নানা ধরনের গরম মসলার দাম মানভেদে ৫০ থেকে সর্বোচ্চ ৩০০ টাকা পর্যন্ত কমেছে।

 

 

পড়তির দিকে আদা-রসুনের দাম। তবে অপরিবর্তিত পেঁয়াজের বাজার। আর পুরোনো তেলের মজুত থাকায় নতুন দামের তেল খুব একটা মিলছে না বাজারে।

 

রাজধানীর খুচরা বাজারে পেঁয়াজ বিক্রি হচ্ছে কেজিতে ৬০ থেকে ৬৫ টাকা, রসুন বিক্রি হচ্ছে ১০০ থেকে ১৪০ টাকা কেজিতে, আদা বিক্রি হচ্ছে ৮০ থেকে ১৪০ টাকা আর দেশি হলুদ বিক্রি হচ্ছে ২৩০ থেকে ২৬০ টাকা কেজিতে। লম্বা জিরা বিক্রি হচ্ছে কেজিপ্রতি ৪৫০ টাকায়। জিরা ও ধনিয়ার গুড়া ৫০০ টাকা কেজিতে, দারুচিনি বিক্রি হচ্ছে ৫০০ টাকা কেজিতে।

 

গরম মসলা, এলাচ ২৩০০-২৪০০ টাকা কেজি, দারুচিনি কেজিপ্রতি ৪৫০ থেকে ৫০০ টাকা, গোলমরিচ ৮৫০ টাকা, কালো গোলমরিচ ৭০০ টাকা, কাজু বাদাম ৭৫০ টাকা থেকে ১২০০ টাকা, লবঙ্গ কেজিপ্রতি বিক্রি হচ্ছে ১০০০ থেকে ১২০০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে।

 

চালের দামেও কোনও নেই পরিবর্তন। আর বৃষ্টি বিঘ্নিত সবজির বাজারে ক্রেতা নেই বললেই চলে। অন্যান্য পণ্যের দাম বাড়ায় ক্রেতারা সবজি কিনছেন মেপে মেপে। ঈদের আগে কাঁচাপণ্যের দাম নিয়ে নতুন করে টালবাহানা যাতে শুরু না হয় সেদিকে নজর দেয়ার দাবি সাধারণের।