সিলেটে চা খেতে গিয়ে ধমক খেলেন সেই তাশরীফ

‘কুঁড়েঘর’ ব্যান্ডের তরুণ শিল্পী তাশরীফ খান সিলেট ও সুনামগঞ্জের বানভাসি মানুষদের সহায়তার আহ্বান জানিয়ে এখন আলোচনায়  । গত ১৩ জুন থেকে সিলেটের বানভাসি মানুষদের সহায়তা করা এ গায়ক ফেসবুক লাইভে আহ্বান জানিয়ে এ পর্যন্ত প্রায় দেড় কোটি তুলেছেন।

এই তাশরীফ খান অভিযোগ এনেছেন সিলেটের একটি জায়গায় চা খেতে গিয়ে পুলিশের দুর্ব্যবহারের শিকার হয়েছেন তিনি, খেয়েছেন ধমকও।

ফেসবুক লাইভে এসে তরুণ এ গায়ক সে ঘটনার বর্ণনা দিয়েছেন এভাবে, “সারা দিন কাজ করার পর গতকাল আড়াইটার দিকে সিলেটের একটি জায়গায় আমরা লাল চা খাচ্ছিলাম। এরপর পুলিশের একটা গাড়ি এলো। পুলিশের একজন অফিসার মোটামুটি ধমকের স্বরেই বললেন, ‘আপনারা কোথাকার? এখানে কী করতেছেন?’ আমি বললাম, স্যার আমরা এখানে ত্রাণ দিতে এসেছি ঢাকা থেকে। আপনাদের সিলেটের জন্যই কাজ করতেছি। আমরা চা খেয়ে এখান থেকে চলে যাব। এরপর আমাকে সরাসরি ধমক দেওয়া হয়েছে। আমাকে বলা হয়েছে, ‘চলে যান এখান থেকে।’”

গায়ক আরও যুক্ত করেছেন “এরপর আমি তাকে বলেছি, স্যার দয়া করে কোনো নাগরিককে এভাবে ধমক দেবেন না। সিলেট বিপদে আছে। আমরা সিলেটের জন্য কাজ করতে এসেছি। আমরা এখানে চুরি-চামারি করতে আসিনি। আমি উনাকে রিকোয়েস্ট করে বলেছি, স্যার চা শেষ করে আমি চলে যাব। তারপর আমাকে কী বলা হয়েছে শুনুন—তখন আমাকে আঙুল তুলে বলা হয়েছে, ‘এখন তো ভালো করে বলেছি, এরপর খারাপ করে বলব। এক্ষুনি চলে যান এখান থেকে।’ এ কথাটা শোনার পর আমি একটা শব্দও করি নাই।”

লাইভে সেই পুলিশ সদস্যের উদ্দেশে তাশরীফ বলেন, ‘স্যার দয়া করে এ সময়টাতে আপনারা একটু পাশে দাঁড়ায়েন। আমাদের পারলে একটু সাহস দিয়েন। আমাদের সাহসটা খুব দরকার। আপনারা সাথে থাকলে আমাদের মন, আমাদের কাঁধটা অনেক ভারী হয়ে যায়।’

সেই লাইভের পরপরই পুলিশের পক্ষ থেকে তাশরীফকে ফোন করা হয়েছে। জানানো হয়েছে, এখন থেকে সিলেটে ত্রাণ সহায়তা কার্যক্রমে তাকে সর্বাত্মক সহায়তা দেবে পুলিশ। পাশাপাশি যে পুলিশ সদস্য তাকে ধমক দিয়েছেন তাকে খুঁজে বের করে জিজ্ঞাসাবাদ করা হবে।